৯জন মেম্বার প্রার্থীর মধ্যে কে হবে বিজয়ী? এ গুঞ্জন  ৮ নং ওয়ার্ড  হাজীগঞ্জ এলাকায়

মোঃশফিকুল ইসলাম আরজু(নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি): দীর্ঘ ২৯ বছর পর ৫ম ধাপে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন হতে যাচ্ছে আগামী ২৬ ডিসেম্বর। এ নির্বাচনকে ঘিরে নারায়নগঞ্জের ফতুল্লা  ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনী এলাকাগুলোতে বইছে ভোট আনন্দ উৎসব।
এলাকাবাসীর সেবা করার জন্য নিজেকে যোগ্য মনে করে নির্বাচনী মাঠে ভোটের যুদ্ধে লড়াই করে চলছেন ৯ জন মেম্বার প্রার্থী। বয়সের দিকদিয়ে এ সকল প্রার্থীদের মধ্যে একজন ৫০ উর্ধ্বে হলেও বাকিরা সবাই তরুন ও যুবক।
হাজীগঞ্জ এলাকায়  মোট ভোটার সংখ্যা প্রায় ৯ হাজারের কাছাকাছি ।প্রার্থীরা তাদের  নিজ নিজ সমর্থক নিয়ে  উঠান বৈঠক ও ঘরে ঘরে ভোটারদের কাছে ভোট চেয়ে নির্বাচনী প্রচারনায় ব্যস্ত সময় পার করছে। ব্যানার,পোষ্টার,হ্যান্ডবিল,স্টিকার সহ মিছিল মিটিং ও মাইকের আওয়াজে উৎসবমুখর পরিবেশ। আনন্দে মুখরিত চারপাশ। চায়ের দোকান থেকে শুরু করে এলাকার অলি গলিতে বইছে আলোচনা সমালোচনার ঝড়। প্রার্থীদের নিয়ে  ভালো মন্দের গুঞ্জন।কে হবে বিজয়ী?
আলোচনা রয়েছে প্রার্থীদের পারিবারিক অবস্হান থেকে শুরু করে তাদের সামাজিক পদ মর্যাদা,শিক্ষাগত যোগ্যতা,নির্বাচনী ব্যায়ের উৎস, চারিত্রিক আচার আচরন।আবার অনেকের মনে প্রশ্ন হয়ে দাড়িয়েছে  যে,যাকে কখনো সামাজিক কোন ধরনের সেবা মূলক   কাজে কখনো দেখা যায়নি সে-ও এবার মেম্বার প্রার্থী। না  নির্বাচনে অংশ গ্রহন করে সমাজের জন্য কাজ করবে বলে ভোট চাইছে।
অনেকের মতে  এ সব জল্পনা কল্পনা ভেদ করে তাদের   মনের আকাঙ্খা একজন যোগ্য প্রার্থীকে বেছে নিয়ে সবাই  ভোট দিয়ে বিজয়ী করে এলাকার জনগণের উন্নয়নের কাজ করাতে চায়।   তবে কোন মাদক সেবী, মাদক বিক্রেতা, ভূমি দস্যু,সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক, ক্ষমতার দাপট, পেশি শক্তি বা টাকার বিনিময়ে ভোট কেনা  প্রার্থীকে এলাকার কেউই  গ্রহন করবে নারাজ।
৮নং ওয়ার্ড হাজীগঞ্জ এলাকার প্রার্থীদের পরিচিতি ও প্রতীক সম্পকে খোজ নিয়ে জানা যায়,  মরহুম  ইয়াছিন চেয়ারম্যান এর নাতি ও কাজী দৌলত এর পুত্র কাজী সাদী সারোয়ার হোসেন সাগর তার প্রতীক ভ্যানগাড়ী,   দুই দুইবারের নির্বাচিত মরহুম  ছালাম মেম্বার এর পুএ হাজী  নাজমুল হোসাইন  সবুজ তার প্রতীক হলো ঘুড়ি। বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম কাজী আক্কাছ আলীর পুত্র মোঃ কাজী সাইদ তার প্রতীক ফুটবল । মরহুম আব্দুল   রশিদ এর পুত্র  মোঃআহসান উল্লাহ খোকন তার প্রতিক মোগর,মৃত  মঞ্জুর এর পুত্র মোঃ আজিবুর রহমান চঞ্চল তার প্রতীক আপেল, বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আজাদ বক্স মোল্লার পুএ আবু সায়েম মোল্লা তার প্রতীক ক্রিকেট ব্যাট, আওয়ামীলীগ নেতা মরহুম  আলী আকবর এর পুত্র মোঃ সানজীল হোসেন তার প্রতীক তালা ,প্রবাসী বাবুল আহম্মেদএর পুত্র মোঃতামীম আহম্মেদ তার প্রতিক লাটিম , মরহুম হবিউল্লাহ এর পুত্র মোঃআরিফুর রহমান আরিফ  তার প্রতিক বৈদ্যুতিক পাখাএরা সবাই মেম্বার পদ প্রার্থী হয়ে ভোটের যুদ্ধে লড়াই করে চলছে।
তারা সবাই এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে কাজ করবেন বলে প্রচারনা করে যাচ্ছে।
প্রতীক যাই হোক এটা নিয়ে এলাকাবাসী কারো আগ্রহ নেই। ভোটারদের আগ্রহ হলো প্রার্থীদের নিয়ে। কে এলাকাবাসীর জন্য বিগত দিনগুলোতে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে ছিলো? কে এলাকার লোকের আপদে বিপদে পাশে দাড়িয়েছিলো?।কে গরিব দুখীর জন্য কাজ করেছে?
কে কতটা মানবদরদী? কে মানুষকে সন্মানের চোখে দেখে? কার মধ্যে অহংকার বা হিংসা কতটুকু? কে সামাজিক ভাবে ন্যায় বিচারকের যোগ্য?
এ সকল বিশ্লেষণ করে যাচ্ছে এলাকাবাসী।
অপরদিকে নতুন ভোটারদের মধ্যে কৌতুহল। আমার প্রথম ভোটটি কাকে দিবো?  সেই বিজয়ী হতে পারবে তো,নাকি ভোটটা বিফলে যাবে?
আগামী ২৬ ডিসেম্বর ই বলে দিবে জনগনের ভোটের রায়ে  কে হবে বিজয়ী?কে হবে জনপ্রতিনিধি?।এ সব আলোচনার মাধ্যমেই নির্বাচনের দিন এগিয়ে আসছে। এলাকার সবাই অপেক্ষায় আছে। সুষ্ঠু সুন্দর পরিবেশে ভোট কেন্দ্রে উপস্হিত হয়ে  পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে  বিজয়ের মালা তারা পড়াবে কার গলায়। বিজয়ের আনন্দ মিছিলে কার নাম উচ্চারিত হবে।আনন্দ উৎসবে মেতে উঠবে হাজীগঞ্জ এলাকা।