১০ কারণে সোহেল এর নৌকা বিজয় সম্ভাবনা,নতুন প্রার্থীদের দাবি প্রশাসনের নিরপেক্ষতা এবং সহিংসতায় কঠিন পদক্ষেপে প্রশাসন

আবুল কালাম আজাদ (স্বাধীন), নোয়াখালী প্রতিনিধি: আজ ১৬ ই জানুয়ারী ২০২১ দেশের প্রথম গ্রেডের পৌরসভাগুলোর মধ্যে অন্যতম প্রাচীনতম জনবহুল নোয়াখালী পৌরসভা নির্বাচন । এই পৌর নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নানান জল্পনা-কল্পনা করছে সাধারণ মানুষ । কে হবে নোয়াখালী পৌরসভার মেয়র এবং কাউন্সিলর ? নির্বাচন কি সুষ্ঠু হবে ? না কি পক্ষপাতসূলভ প্রহসনের নির্বাচন হবে ? এমনি নানান প্রশ্নে’র সম্মখ্যিন হতে হয় পেশাগত দায়িত্ব পালনে। স্থান পরিদর্শণ ও বিশ্লেষকগণের মতামতের ভিত্তিতে মেয়র পদপ্রার্থী ৭ জনের মধ্যে বর্তমান মেয়র জনাব মোঃ শহিদ উল্যাহ্ খান (সোহেল) ৯ কারণে পুনরায় মেয়র বিজয়ের সম্ভাবনভ সবচেয়ে বেশি । ১ম কারণ: ২০১৬-২০২২ পর্যন্ত বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা, ব্রিজ, জলাবদ্ধতা নিরসনে ভূমিকা, ২০-২৫ বছরের অবহেলিত অনেক ছোট-বড় রাস্তা মেরামত, ২য়:জেলা আ’লীগের প্রভাবশালি নেতৃবৃন্দসহ অনেক নেতা-কর্মী নির্বাচনে
প্রচারসহ ভোট সংগ্রহ। ৩য়: অন্যান্য রাজনৈতিক দলের বিরুদ্ধে প্রতিহিংসামুলক বক্তব্য ও হামলা – মামলা থেকে বিরতভ। ৪র্থ: ব্যবসায়িসহ মুরুব্বি শ্রেণৗকে দলিল বিবেচনায় না রেখে পৌর সেবা প্রদানে অগ্রাধিকার দেওয়াতে।৫ম: ২০২০ এর ২৬ মার্চ থেকে করোনায় সৃষ্ঠ পরিস্থিতিতে পৌর তহবিলসহ ব্যক্তিগত উদ্যোগে খাদ্য-সামগ্রৗ বিতরণসহ স্বাস্থ্যসুরক্ষায় বিশেষ অবদান। ৬ষ্ঠ:সরকারি সমর্থিত লোক নির্বাচিত না হলে তেমন উন্নয়নমুলক কাজের বরাদ্দ হবে না; বাংলাদেশের রাজনৈতিক দলগুলো এমন ধারায় হওয়াতে উন্নয়নে বিশ্বাসী লোক ও তাঁদের পরিবারের ভোট নৌকা ভোট দিবে। ৮ম: বিএনপির বড় ভোট ব্যাংক দুই ভাবে বিভক্ত ও বিএনপি থেকে বহিষ্কার হওয়ায় সাধারণ ভোটার নৌকার দিকে প্রবাহিত। ৯ম: এদিকে মোবাইল প্রতিক মেয়র প্রার্থি আওয়ামীলীগ থেকে বহিষ্কৃত ও ভোটার নয় এমন লোক নিয়ে উৎপাত করাতে এখন গণবিচ্ছিন্ন !। এবং ১০: মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে ব্যক্তিগত সহকারি জনাব জাহাঙ্গির আলম, জেলা আ’লীগ সভাপতি অধ্যক্ষ জনাব খায়রুল আনম সেলিম ও আহŸায়ক জনাব শিহাব উদ্দিন শাহিন এবং কবিরহাট পৌর মেয়র জনাব জহিরুল হক রায়হানের নেতৃত্বে আ’লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগ এবং শ্রমিকলীগের অনেক নেতা-কর্মীদের নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা থাকাতে নৌকার দক্ষ মাঝি জনাব সোহেল দ্বিতীয়বার মেয়র বিজয়ী হওয়ার সম্বাবনা।

অন্যদিকে, নৌকার বিজয় সম্ভাবনা থাকলেও কিছু ষড়যন্ত্র যেমন প্রশাসন বিশৃঙ্খলাতে ব্যর্থতা; সোহেল সমর্থিত সাধারণ পুরুষ ও মহিলা ভোটারগণ ভোট দিতে ব্যর্থ হলে; নৌকা বা সোহেলে বিরুদ্ধে আ’লীগের প্রভাবশালি নেতার পক্ষ থেকে অর্থ বিলি বন্ধ করতে ব্যর্থ হলে সোহেল এর বিজয় সম্ভাবনা বিলিন হতে পারে বলে বিশ্লেষকগণের এক অংশ মনে করছে। গত ১৪ জানুয়ারী ১ নং ওয়ার্ডে নির্বাচনী জনসভায় সোহেল’র ভাস্য ও সাধারণ জনগণের মতামতের ভিত্তিতে আ’লাগ কিছু লোক বেঈমানী করে নৌকার বিরুদ্ধে গেলেও এবং এক অংশর চুপ থাকলেও। নৌকা প্রতিক দেখে নয়; বিগত ৫ বছরে নতুন উন্নয়ন এবং সোহেল’র ব্যক্তিগত গুণে পৌর সাধারণ জনগণ আবার মেয়র নির্বাচিত হওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি মনে করছে সাধারণ সচেতন মহল, সুশিল সমাজ এবং বিশ্লেষকগন। প্রায় সব মেয়র ও কাউন্সিলর পদপ্রার্থীরা নির্বাচনে প্রশাসনকে নিরপেক্ষ থাকার দাবি করছেন।
অন্যদিকে, ৯ টি ওয়ার্ডে স্থান পরিদর্শণে জনহিতকর কিছু নির্বাচনী ইশতেহার ও ব্যপক প্রচারের কারণে জনসমর্থন বেশি বা তারা হলেন অত্র পৌরসভার ৯ টি ওয়ার্ড পরিদর্শণে জানাগেছে এবং জনপ্রিয়তা সবচেয়ে বেশি মনে করছে সাধারণর ভোটাগন এর মধ্যে ১ নং ওয়ার্ডে মিজানুর রহমান (পলাশ), গাজর প্রতিক; ২ নং মোঃ ওহিদ উল্যাহ্ (পলাশ), গাজর ; ৩ নং ডালিম প্রতিকে আমিন উল্যাহ্ (সেলিম); ৪ নং আলহাজ্ব মোহাম্মদ হোসেন মিযা, ব্রিজ; ৫ নং বর্তমান প্যানেল মেয়র রতন কৃষ্ণ পাল, উট পাখি; ৬ নং মোঃ জাহিদুর রহমান (শামীম),টেবিল ল্যাম্প ; ৭ নং মোফাজ্জল হোসেন বাবু, পাঞ্জাবি; ৮ নং জাকির হোসাইন, টেবিল ল্যাম্প; এবং ৯ নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর মোঃ ফখরুদ্দিন মাহমুদ ফখরুল,পাঞ্জাবি; এছাড়াও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর হিসেবে ১,২,৩ ওয়ার্ডে বলপেন মার্কায় মোহনা সানজিদা (রিয়া) ; ৪,৫,৬ নং এ লিলি রহমান, আনারস প্রতিকে এবং ৭,৮,৯ এ ফরিদা আক্তার আনারস প্রতিকে কাউন্সিলর বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। এদিকে, নোয়াখালী জেলা প্রশাসন, নির্বাচন অফিস এবং পুলিশ সুপার কার্যালয় সূত্রে জানাগেছে, পৌর নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কোন প্রার্থী নির্বাচনৗ আচরণ বিধি লঙ্গন বা কোন প্রকার সহিংসতার করলে অথবা সহিংসতায় সহযোগীতা করলে কঠোর ব্যবস্থায় যাওয়ার জিরো টলারেন্স ঘোষণা দিয়েছে।