হবিগঞ্জে বিয়ের ৬ মাসের মাথায় নববধূর  গলাকাটা লাশ উদ্ধার

কামরুল হাসান কাজল, হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জে বিয়ের ৬ মাসের মাথায় নববধূর গলাকাটা লাশ উদ্ধার করছে থানাপুলিশ।জানা যায়, গত সোমবার রাত সাড়ে ৯টায় এ ঘটনাটি ঘটেছে।নবীগঞ্জ উপজেলার রসুলগঞ্জ বাজারে সফিক মিয়ার মালিকানাধীন একটি বাসায় রাজনা বেগম (১৯) নামে এক গৃহবধূর। এ ঘটনার পর থেকে তার স্বামীর কোনো সন্ধান  পাওয়া যাচ্ছেনা। নিহত রাজনা বেগম ওই ইউনিয়নের বড় আলীপুর গ্রামের জাকারিয়া মিয়ার স্ত্রী ও পশ্চিম তিমিরপুর গ্রামের মৃত আঃ রহিমের মেয়ে। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়- বিগত প্রায় ৬ মাস পূর্বে উপজেলার সদর ইউনিয়নের বড় আলীপুর গ্রামের সবুজ মিয়ার ছেলে জাকারিয়া মিয়ার সাথে পশ্চিম তিমিরপুর গ্রামের মৃত আঃ রহিমের মেয়ে রাজনা বেগমের বিয়ে হয়। এরপর থেকে জাকারিয়া ও রাজনা এক সাথে সংসার করে আসছিল। গত ১০/১২ দিন আগে  রসুলগঞ্জ বাজারের সফিক মিয়ার মালিকানাধীন একটি বাসা ভাড়া নেন জাকারিয়া মিয়া ও তার স্ত্রী রাজনা বেগম। এরপর থেকে স্বামী-স্ত্রী ওই বাসায় বসবাস করে আসছিলেন। ৩১ জানুয়ারি  সোমবার বিকালে রাজনা বেগমের মা রাজনাকে দেখতে ওই ভাড়া বাসায় যান। এ সময় তাদের বসবাসরত কক্ষের দরজা বন্ধ দেখে ডাকাডাকি করেন।এক পর্যায়ে কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে দরজার ফাঁক দিয়ে মেয়ের রক্তাক্ত দেহ বিছানার ওপর পড়ে থাকতে দেখেন। এ সময় তার জোর চিৎকারে আশাপাশের লোকজন এসে পুলিশকে খবর দেয়। খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানার একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে নিজ কক্ষের বিছনার ওপর থেকে গলাকাটা অবস্থায় রাজনা বেগমের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ সময় একটি রক্তমাখা বটি দা উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনার পর থেকে রাজনা বেগমের স্বামী জাকারিয়া মিয়ার কোনো সন্ধান পাওয়া যাচ্ছেনা। এ প্রসঙ্গে নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ডালিম আহমেদ নিহতের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য হবিগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।রহস্যটি উদঘাটনের জন্য  পুলিশের বিভিন্ন সেল তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে।