স্মৃতিকাতর অধিনায়ক স্মিথ!

নিজস্ব প্রতিবেদক: নেতৃত্বের দায়িত্ব পেয়ে দলকে বেশ ভালোভাবেই এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন অস্ট্রেলিয়ার দলপতি স্টিভেন স্মিথ। কিন্তু বল টেম্পারিংয়ের অভিযোগে নেতৃত্ব হারানোর পাশাপাশি দল থেকেও বাদ পড়েন। এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ হন। সেই নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে আবার দলে ফিরলেও নেতৃত্ব আর পাননি। সেই নেতৃত্ব তিনি পেয়েছেন অ্যাডিলেড টেস্টে নিয়মিত অধিনায়ক প্যাট কামিন্সের অনুপস্থিতিতে।

টেস্টের আগের দিন কামিন্স করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে গেলে তাকে আইসোলেশনে পাঠানো হয়। তার অনুপস্থিতিতে নেতৃত্ব দেন ডেপুটি অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ । টেস্টও জিতেন ২৭৫ রানের বড় ব্যবধানে। এর ফলে ৫ টেস্টের অ্যাসেজ সিরিজে স্বাগতিকরা এগিয়ে যায় ২-০ ব্যবধানে। আর এই টেস্টের নেতৃত্ব দিয়ে গিয়ে স্মিথের মনে পড়ে গেছে পুরানো অনেক স্মৃতি।

তিনি বলেন, ‘কামিন্সের অনুপস্থিতিতে দলকে নেতৃত্বে দেওয়া ছিল অনেক আনন্দদায়ক। আমাকে অনেক পুরানো স্মৃতি মনে করে দিয়েছে। আমি খুবই আনন্দ পেয়েছি। এটা আসলে বলে বুঝানো যাবে না। কিন্তু বাস্তবতা হলো এই দলের অধিনায়ক কামিন্স। আমি তার ডেপুটি। তাকে সহযোগিতা করাই আমার কাজ। যে কোনোভাবে আমি তাকে সহায়তা করতে প্রস্তুত। ডেপুটি হিসেবে এটি আমার দায়িত্ব। আর ব্যাট হাতে চেষ্টা করবো সর্বোচ্চটা দিতে।’

স্মিথ প্রশংসা করেছেন মিশেল স্টার্কের বোলিংয়ের। ম্যাচে ৮০ রানে নিয়েছেন ৬ উইকেট। স্মিথ অনেকদিন পর এভাবে স্টার্ককে এভাবে বোলিং করতে দেখেছেন বলে জানান। তিনি বলেন, ‘বিশ্বের সেরা পেস বোলারদের মাঝে স্টার্ক একজন। টেস্টে তার বোলিং ছিল প্রশংসনীয়। অনেকদিন পর তাকে এভাবে বোলিং করতে দেখলাম।’