সিরাজদীখানে অবৈধ বালু উত্তোলনের দায়ে ২ লাখ টাকা জরিমানা ও দুইটি শ্যালো মেশিন জব্দ

সিরাজদীখান (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি: অনুমোদন না থাকা ও কৃষি জমির উপরিভাগের মাটি কাটার দায়ে মুন্সীগঞ্জের সিরাজদীখানে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ২ লাখ টাকা জরিমানা ও দুইটি শ্যালো মেশিন জব্দ করা হয়েছে। গতকাল রবিবার দুপুর ১ টার দিকে উপজেলার লতব্দী ইউনিয়নের পুর্ব রামকৃষ্ণদী গ্রামের মামা ভাগিনা নামে ইটভাটায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) তাসনিম আক্তার।

এসময় মামা ভাগিনা নামে ইটভাটাকে ২ লাখ টাকা জরিমানা ও ১টি বড় শ্যালো মেশিন এবং পাইপ ভাঙ্গন ও রামকৃষ্ণদী বিলে একটি মাটিকাটার ছাউনি ঘর পুড়িয়ে ফেলা ও ১টি ছোট শ্যালো মেশিন জব্দ করা হয়। দীর্ঘদিন ধরে লতব্দী ইউনিয়নের খিদিরপুর-রামকৃষ্ণদী রাস্তার উপর দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের জন্য পাইপ স্থাপণ করে মানুষের চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে আসছে মামা ভাগিনা নামে ইটভাটার কর্তৃপক্ষ। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে রাস্তার পাশে মাটির স্তুপ করে রাখার কারণে ধুলায় একাকার হয়ে যাওয়ায় মানুষজনের চলাচলে দুর্ভোগ পোহাতে হয়। এর ফলে এই ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়। এ-সময় উপস্থিত ছিলেন সিরাজদীখান থানার এসআই মোহাম্মদ ইমরান খান ও সঙ্গীয় ফোর্স।

এবিষয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) তাসনিম আক্তার বলেন, আজ (রবিবার) ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে একটি ইটভাটাকে ইট প্রস্তুত ও নিয়ন্ত্রণ আইন ২০১৩ এর ৪ ও ৫ এর (১) ও (২) ধারা মোতাবেক ২ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। মাটিকাটা ও অবৈধভাবে রাস্তার উপর দিয়ে বালু বহনকারী পাইপ আনা নেওয়ার অভিযোগে ১টি বড় শ্যালো মেশিন এবং রামকৃষ্ণদী বিলে ১টি মাটিকাটার ছাউনি ঘর পুড়িয়ে ফেলা ও ১টি ছোট শ্যালো মেশিন জব্দ করা হয়। আমাদের এই অভিযান অব্যাহত থাকবে।

উল্লেখ্য, সিরাজদীখানে এই মৌসুমে ফসলি জমির উপরিভাগের মাটি বিক্রির হিড়িক পড়েছে। কৃষকদের অভাবের সুযোগ নিয়ে এসব মাটি

কিনে নিয়ে ইট তৈরির কাজে লাগাচ্ছে ইট ভাটা মালিকরা। এতে জমির উর্বরতা শক্তি কমে যাচ্ছে। ফলে ফসলি জমির উর্বরতা শক্তি নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা করছে কৃষি অফিস।