সমুদ্র সৈকতের ৫ কি.মি.এলাকায় নির্মিত হবে স্থায়ী বাঁধ সিনিয়র সচিবঃ কবির বিন আনোয়ার 

দিদারুল আলম সিকদার, কক্সবাজার জেলা প্রতিনিধি: কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের ভাঙ্গন পরিদর্শন করলেন পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কবির বিন আনোয়ার। এসময় তিনি বলেন কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের নাজিরারটেক থেকে মেরিন ড্রাইভ পর্যন্ত পাঁচ কিলোমিটার অংশের ভাঙ্গন রোধে কয়েক বছর ধরে জিও ব্যাগ দিয়ে বাঁধ দেয়া হচ্ছে। এটি খুবই অস্থায়ী একটি ব্যবস্থা। এই জিও ব্যাগ বসিয়েও ভাঙ্গন রোধ সম্ভব হচ্ছে না। তাই স্থায়ী প্রতিরক্ষা বাঁধ নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। আগামী শুষ্ক মৌসুমে বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু হবে।

গেল ১২ আগস্ট বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের ভাঙ্গন পরিদর্শনে এসে তিনি সাংবাদিকদের এসব কথা জানিয়েছেন। এসময়

তিনি আরোও বলেন, নাজিরাটেক থেকে মেরিন ড্রাইভ পর্যন্ত ৫ কিঃ মিঃ এলাকায় নির্মিত হবে স্থায়ী বাঁধ। এর জন্য প্রাথমিকভাবে ব্যয় ধরা হয়েছে ৩ হাজার ১’শত ৪০ কোটি টাকা। আগামী এক থেকে দেড় মাসের মধ্যে কাজ শুরু হবে জানিয়ে সচিব বলেছেন, পর্যটন এলাকায় কাজ করতে হলে শুষ্ক মৌসুম করতে হয়। সৈকতের যে কয়েকটি পয়েন্টে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে সেগুলো আপাতত জিও ব্যাগ দিয়ে রক্ষার জন্য কাজ শুরু হয়েছে। জিও ব্যাগ পানির নিচে থাকলে তা টেকসই হয়। তবে খোলামেলা থাকলে টিকে দুই থেকে তিন বছর। তাই স্থায়ী বাঁধ নির্মাণ করা হবে। এই বাঁধ হবে আকর্ষণীয় ও টেকসই। সেখানে ফুটওয়েসহ আরো নানা সুবিধা থাকবে। যাতে পর্যটকেরা আকর্ষিত হয়।

এসময় জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশিদ, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু সুফিয়ান, কক্সবাজার প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মুজিবুল ইসলামসহ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উর্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে সর্বশেষ গত দুই দিনে উত্তাল সাগরের ঢেউয়ের তোড়ে প্রবল ভাঙ্গন দেখা দেয় সৈকতের লাবনী পয়েন্টে। সাগর গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে ট্যুরিস্ট পুলিশের একটি স্থাপনাসহ বড় সৈকতের বড় একটি অংশ।