ষড়যন্ত্র হচ্ছে দেশকে অকার্যকর ও ব্যর্থ একটি রাষ্ট্রে পরিণত করার! সবাইকে সর্তক থাকতে হবে – এ কে এম শামীম ওসমান

মোঃশফিকুল ইসলাম আরজু, নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি:  নারায়ণগঞ্জ – ৪ আসনের সংসদ সদস্য এ কে এম শামীম ওসমান  বিএনপি নেতা কর্মীদের উদ্দেশে বলেন, ‘আপনারা খেলতে চান, সুযোগ নিতে চান। কবে খেলবেন বলেন। আমরাও খেলতে চাই। আপনারা খেলবেন ধ্বংসের পক্ষে, আর আমরা খেলব এই দেশ গড়ার পক্ষে। আপনারা খেলবেন সাম্প্রদায়িকতার পক্ষে, আর আমরা খেলব অসাম্প্রদায়িকতার পক্ষে। ডেট দিন, কবে খেলবেন। সারা বাংলাদেশে ঝামেলা করার দরকার কী? আসুন নারায়ণগঞ্জে খেলি।’

২৭ আগস্ট শনিবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ  ২ নম্বর রেলগেটে আয়োজিত শোকসভার সমাবেশে শামীম ওসমান এ কথা বলেন।

শামীম ওসমান তাঁর সকল নেতাকর্মীদের  বলেন, ‘দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও সবাইকে এ বিষয়ে সতর্ক থাকতে বলেছেন। আমাদের পূর্ব পুরুষরা রক্ত দিয়ে স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন। এখন দেশ আবারও বিপদে। বঙ্গবন্ধুহীন বাংলাদেশে রক্ত তো আমাদেরই দিতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘গত কয়েকদিন ধরে নারায়ণগঞ্জে বিএনপি, অনেক সুশীল বলছে নারায়ণগঞ্জের রাজপথ দখল করতে হবে। আরে দেখেন না এই নারায়ণগঞ্জের রাজপথ কার দখলে। নারায়ণগঞ্জের রাজপথ শেখ হাসিনার দখলে।’

শামীম ওসমান বলেন, ‘মির্জা ফখরুল সাহেবরা হেসে হেসে বলেন আওয়ামী লীগের কপালে নাকি শনি আছে। কেন? বাংলাদেশ নাকি শ্রীলংকা হবে। আরে বাংলাদেশ দেউলিয়া হলে আপনাদের খুশি হওয়ার তো কোনো কারণ নাই। এই বিষয়ে তারাই খুশি হচ্ছে যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা মেনে নিতে পারে নাই। যারা ১৫ আগস্টে জাতির পিতাকে তার পরিবারসহ নির্মমতার সঙ্গে হত্যা করেছে। যারা আমাদের প্রধানমন্ত্রীকে ২১ বার হত্যা করার চেষ্টা করেছে। তারাই আজ দেশকে দেউলিয়া হিসেবে দেখতে চায়।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা করা হচ্ছে দাবি করে আওয়ামী লীগের এ সংসদ সদস্য বলেন, ‘শেখ হাসিনা আমাদের ভবিষ্যৎ না। আমাদের ভবিষ্যৎ তো ছিল বঙ্গবন্ধু। তাকে হত্যা করে আমাদের স্বপ্নগুলোকে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এখন শেখ হাসিনা আমাদের পরবর্তী প্রজন্মের ভবিষ্যৎ, তাকে হত্যা করে আমাদের বাচ্চাদের ভবিষ্যৎ নষ্ট করতে চাচ্ছে। সামনে কঠিন সময় আসছে। এখন যে চক্রান্ত হচ্ছে তা শুধু আওয়ামী লীগকে হটানোর জন্য না। এই ষড়যন্ত্র হচ্ছে আমাদের এই দেশকে অকার্যকর ও ব্যর্থ একটি রাষ্ট্রে পরিণত করার জন্য।’

নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি চন্দনশীলের সভাপতিত্বে মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা, জেলার সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহীদ বাদল, দপ্তর সম্পাদক এম এ রাসেল, মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাহমুদা মালা, মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইসরাত জাহান স্মৃতি, মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজাম, সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক এড. শামসুল ইসলাম ভুইয়া, সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল্লাহ আল কায়সার হাসনাত, ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম সাইফ উল্লাহ বাদল, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক  ও সোনারাগঁ উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আবু জাফর চৌধুরী বিরু, পিরোজপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও সোনারাগঁ উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ইঞ্জিনিয়ার মাসুদুর রহমান মাসুম, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জিএম আরমান, সাংগঠনিক সম্পাদক এড. মাহমুদা মালা, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইয়াসিন মিয়া, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল, নারায়ণগঞ্জ আদালতের সাবেক পিপি ওয়াজেদ আলী খোকন, জেলা শ্রমিক লীগের আহ্বায়ক আব্দুল কাদির, মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদত হোসেন ভুইয়া সাজনু, নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এহসানুল হোসেন নিপু, নারায়ণগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা এবং সোনারগাঁও পৌরসভার মেয়র প্রার্থী ছগীর আহাম্মেদ, মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও তোলারাম কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান রিয়াদ, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সাফায়েত আলম সানি, মহানগর সাবেক সহ সভাপতি শাহরিয়ার রেজা হিমেল, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম রাফেল, মহানগর ছাত্রলীগ নেতা হাসনাত রহমান বিন্দুসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন।