ষড়যন্ত্রের স্ক্রিনশট দেখালেন নিপুণ, পাল্টা মামলার হুমকি জায়েদের

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদে জয়লাভ করা জায়েদ খানের বিরুদ্ধে ভোটারদেরকে নগদ টাকা দেওয়া অভিযোগ প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী নিপুণ আগেই করেছিলেন। এবার সংবাদ সম্মেলনে টাকা লেনদেনের ভিডিওচিত্র দেখালেন। একই সঙ্গে আরও ষড়যন্ত্রের প্রমাণ হিসেবে মোবাইল ফোনে গোপন স্ক্রিনশট ফাঁস করলেন নিপুন।

আজ রবিবার (৩০ জানুয়ারি) বিকালে প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে মাল্টিমিডিয়া স্ক্রিনে মোবাইল ফোনের স্ক্রিনশটগুলো সবার সামনে প্রকাশ করেন। পাশাপাশি স্ক্রিনশটের লেখাগুলো পড়ে সবাইকে শোনান নিপুণ।

সংবাদ সম্মেলনে জাদের খানের বিরুদ্ধে নানান অভিযোগ তুলে ধরেন এই চিত্রনায়িকা। তিনি বলেন, ‘জায়েদ নির্বাচনের বিধিনিষেধ ভঙ্গ করে ভোটারদের টাকা দিয়ে ভোট চেয়েছে। এখানে জায়েদ খান, এফডিসির এমডি, আর নির্বাচন কমিশনার পীরজাদা হারুন একটা চক্র। তারা সবাই মিলে জায়েদ খানকে জিতিয়ে দিয়েছে। তারা টাকা দিয়ে ভোট কিনেছে ভিডিওতে সেটা দেখা গেছে।’

নিপুণ আরও বলেন, ‘আমি আবার শিল্পী সমিতির নির্বাচনে শুধু সাধারণ সম্পাদক পদের জন্য নির্বাচন চাই। অন্য পদের নির্বাচন চাচ্ছি না। আমি সবকিছুর জন্য উচ্চ আদালতে যাবো। আমাদের শিল্পী সমিতির নির্বাচনে এই নিয়ম আছে শুধু এক পদের ভোট হওয়া।’

সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন নবনির্বাচিত সভাপতি ইলিয়াস কাঞ্চন, সহ-সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী নায়ক রিয়াজ, আফজাল শরীফ, সাইমন সাদিক, জেসমিনসহ কাঞ্চন-নিপুণ পরিষদের আরও অনেকেই।

ষড়যন্ত্র করে শিল্পী সমিতির নির্বাচনে জিতেছেন জায়েদ খান, নিপুণের এ অভিযোগ ও তথ্য প্রমাণ সম্পর্কে জায়েদ খানের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি এটাকে সুপার এডিটেড বলে দাবি করেন।

সন্ধ্যায় এফডিসিতে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘স্ক্রিনশটের ব্যাপারটি নির্বাচনের আগের দিনই আমার কাছে এসেছে। একজন পাঠিয়েছে। আধুনিক যুগে এগুলো সবাই জানেন। স্ক্রিনশট হলে, যার কাছে মেসেজ পাঠিয়েছি, তার ছবিটা কোথায়? দুইজনের সঙ্গে আলাপের স্ক্রিনশট দেখানো হয়েছে, তাহলে সেই মানুষটা কে? আমরা এতো বোকা না। স্ক্রিনশট দিয়ে তার নামটা সরিয়ে দেবেন, তাহলে কীভাবে হবে! ওই লোকটাকে সামনে আনেন। যাকে আমি এসব মেসেজ দিয়েছি, তাকে দেখতে চাই।’

তিনি বলেন, ‘এটা সম্পূর্ণ বানোয়াট। আমার একটা ছবি দিয়ে প্রোফাইল খুলে এই স্ক্রিনশটগুলো রেডি করে তারপর ছেড়ে দিয়েছে। আমি ওইদিনই বিষয়টি নিয়ে সাইবার ক্রাইমে কথা বলেছি। অলরেডি আমি স্ক্রিনশট পাঠিয়ে দিয়েছি। তারা এটা নিয়ে কাজ করছেন। এটা যে করেছে, তাকে আইনের আওতায় আনার জন্য আমি মামলা পর্যন্ত করব।’

জায়েদ খান আরও বলেন, ‘মেসেজের পাশে ওই ব্যক্তির ছবিও থাকার কথা, উপরে নাম থাকার কথা। কিছুই নেই। এটা কীভাবে সম্ভব। এটা সুপার এডিটেড।’