ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসকের সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়

 মোঃ আল মামুন,জেলা প্রতিনিধি,ব্রাহ্মণবাড়িয়া: ‘কোনো জেলা প্রশাসক নিজেকে রাজা ভাবার ধারণা পোষণ করেন বলে মনে করি না। এগুলো আসলে কথার কথা বলা হয়ে থাকে। কেউ কেউ এভাবে বলে জেলা প্রশাসককে খোঁচা দিয়ে মজা পেয়ে থাকেন।’

সোমবার(১৪ ফেব্রুয়ারি) সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবাগত জেলা প্রশাসক মো. শাহ্গীর আলম সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন। এসময় তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়াকে নিজের জেলা হিসেবে উল্লেখ করে সকলের সহযোগিতায় এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ইচ্ছা পোষণ করেন। ঐতিহ্যবাহী ব্রাহ্মণবাড়িয়াকে অনিয়ম ও দুর্নীতিমুক্ত করতে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নানামূখী সিদ্ধান্ত গ্রহনের কথা জানান। এরই আলোকে যানজট নিরসন, হকারমুক্ত ফুটপাত, নদী দখল উচ্ছেদসহ বিভিন্ন অনিয়মের বিরুদ্ধে দ্রুতই কার্যক্রম পরিচালিত হবে। এছাড়াও ব্রাহ্মণবাড়িয়াকে একটি পরিকল্পিত নগরীতে রুপান্তরিত করতে সকলের সহযোগীতা চান। তিনি আরো জানান, জেলা প্রশাসনের যে এলআর ফান্ড সেটা থেকে জেলা প্রশাসকের ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার হবে না বলে অলরেডি জানিয়ে দিয়েছি। এর টাকা জেলার উন্নয়নে ব্যয় হবে। মতবিনিময়কালে সাংবাদিকদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাবের সভাপতি রিয়াজ উদ্দিন জামি, সাধারন সম্পাদক জাবেদ রহিম বিজন, মোহাম্মদ আরজু, সৈয়দ মো. মিজানুর রেজা, খ. আ. ম. রশিদুল ইসলাম, মো. সাদেকুর রহমান, আ. ফ. ম. কাউছার এমরান, দীপক চৌধুরী বাপ্পী, পীযূষ কান্তি আচার্য, জয়দুল হোসেন প্রমুখ।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. রুহুল আমীনের সঞ্চালনায় মতবিনিময়কালে জেলা প্রশাসক শাহ্গীর আলম সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন। পাশাপাশি তিনি পেশাগত কাজে সাংবাদিকদেরকে সব ধরণের সহযোগিতা করার আশ্বাস দেন। বেলা সোয়া ১১টা থেকে দুপুর সোয়া ১টা পর্যন্ত এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় জেলা প্রশাসক ব্রাহ্মণবাড়িয়ার উন্নয়নসহ সামগ্রিক বিষয় নিয়ে নিজের কিছু পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন।

শাহ্গীর আলম এ সময় বলেন, ‘আমি এখানে সরকারি কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে এসেছি। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মানুষের সহযোগিতা নিয়ে সেটা করে যেতে চাই। আমি অলরেডি একটি ফোরামে বলে দিয়েছি যে, আমি দল বা ব্যক্তির দ্বন্দ মেটাতে এখানে আসিনি।’

তিনি বলেন, ‘দুর্নীতি নিয়ে আমার জিরো টলারেন্স। এটা প্রধানমন্ত্রীরও কথা। দুর্নীতি নিয়ে আপনারা আমাকে জানাবেন। আমি দুর্নীতি করলে আমার বিরুদ্ধেও লিখবেন। এটা আমি স্পষ্ট করে সেটা বলে দিচ্ছি। ‘

এসময় জেলা প্রশাসক আশ্রয়ণ প্রকল্পের যেখানে যেখানে অনিয়ম হচ্ছে সেটি নিয়ে লেখার জন্য সাংবাদিকদের প্রতি আহবান জানান। এসময় তিনি একটি উপজেলায় গিয়ে অনিয়ম পাওয়ার বিষয়টিও উল্লেখ করেন। মতবিনিময়শেষে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের জন্য ১ হাজার মাস্ক দেয়া হয়। সভায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।