রামুর ঈদগড় রেঞ্জ অফিসে বন্যহাতি – মানুষ সংঘাত নিরসন বিষয়ক জনসচেতনতা মূলক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

দিদারুল আলম সিকদার, কক্সবাজার জেলা প্রতিনিধি: হাতি মানুষ দ্বন্দ্বের ফলে প্রতিনিয়ত অনেক নিরীহ হাতি হত্যার শিকার হয়েছে। আর মানুষ হচ্ছে ক্ষয়ক্ষতির শিকার, এমনকি কখনো কখনো মানুষ নিহত হয় হাতির আক্রমনে।
আমরা জানিনা যে, বন্যপ্রাণি (সংরক্ষণ এবং নিরাপত্তা) আইন, ২০১২, অনুযায়ী হাতি হত্যা করা একটি আইনত দন্ডনীয় অপরাধ। হাতি হত্যা করলে বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী জেল, জরিমানা অথবা উভয় শাস্তির বিধান রয়েছে।
আমরা অনেকেই হয়তো জানিনা যে হাতি দ্বারা কোন প্রকারের জানমালের ক্ষয়ক্ষতি হলে তা পূরণের জন্য “বন্যপ্রাণি দ্বারা আক্রান্ত মানুষের জানমালের ক্ষতি পূরণ নীতিমালা ২০২১” অনুযায়ী সরকার এর পক্ষ থেকে আর্থিক সহায়তার ব্যবস্থা রয়েছে। তাই হাতিকে হত্যা না করে, হাতি সংরক্ষণে বাংলাদেশ বন বিভাগকে সহায়তা করতে হবে। সহায়তা করতে হবে স্থানীয় এলিফ্যান্ট রেস্পন্স টিমকে।
আজ সকাল ১০ ঘটিকার সময় ঈদগড় রেঞ্জ কর্মকর্তার কার্যালয়ে স্থানীয় মানুষদের সচেতন করার জন্য কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগ ঈদগড় রেঞ্জ একটি জনসচেতনতা মূলক কর্মশালা আয়োজন করা হয়।
আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন ঈদগড় রেঞ্জ কর্মকর্তা  মোস্তাফিজুর রহমান, এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তুলাতলী বিট কর্মকর্তা মোঃ কামরুল ইসলাম ফকির, বাইশারী বিট কর্মকর্তা মোঃ মোরশেদ কবির, নেচার কনজারভেশন ম্যানেজমেন্ট (নেকম) এর সুফল (SD-57) প্রকল্পের ফিল্ড ফ্যাসিলিটেটর মুফিদুল আলম, CBN news সাংবাদিক জাফর আলম জুয়েল, সাংবাদিক আবদুল হামিদ, ঈদগড় ইউনিয়নের ৯ টি ওয়ার্ডের সাবেক ও নব নির্বাচিত সকল এম ইউ পি সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন, বিভিন্ন বিট অফিসের ফরেস্ট গার্ড, বিভিন্ন বিটের ভিলেজার সহ স্থানীয় গ্রামবাসীরা।
সভায় হাতি সংরক্ষণ, হাতি মানুষের দ্বন্দ্ব নিরসন, হাতি দ্বারা আক্রান্তদের ক্ষতিপূরন, বন্যপ্রাণি (সংরক্ষণ এবং নিরাপত্তা) আইন, ২০১২ সহ নানা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আলোচিত হয়। উক্ত
আলোচনা সভাটি  কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তার নির্দেশনায় ঈদগড় রেঞ্জ কর্মকর্তা ঈদগড় রেঞ্জ অফিসে এই সচেতনতা মূলক কর্মশালা আয়োজন করা হয়েছে।