যড়যন্ত্র মুলক মিথ্যা ও অস্ত্র মামলা থেকে বেকসুর খালাস পেলেন- সিআইপি শুক্কুর 

দিদারুল আলম সিকদার, কক্সবাজার জেলা প্রতিনিধিঃ 
  • কোন শক্তিই আমাকে টেকনাফ পৌরবাসীর কাছ থেকে আলাদা করতে পারবেনা: আবদুস শুক্কুর সিআইপি 
টেকনাফ বন্দরের বিশিষ্ট  ব্যবসায়ী, সমাজ সেবক করদাতা- যিনি বৈধ হালাল ও ব্যবসা করে সরকারকে নিয়মিত কর পরিশোধ করে সরকার ও এনবিআর কর্তৃক দুই দুইবার সিআইপি হিসেবে মনোনীত করেছেন। টেকনাফের স্বনামধন্য ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক রাজনৈতিক, মরহুম এজার মিয়া কোং সুযোগ্য পুত্র- মো. আবদু শুক্কুর সিআইপি একটি ষড়যন্ত্র মুলক মিথ্যা ও অস্ত্র মামলা থেকে আদালত কর্তৃক রায়ে বেকসুর খালাস পেয়েছেন। উক্ত মিথ্যা ও ষড়যন্ত্র মুলক অস্ত্র মামলা  থেকে বেকসুর খালাস পেয়ে তিনি সংবাদ কর্মীদের কে জানান। কোন মিথ্যা ও ষড়যন্ত্র থেকে আমাকে পৌরবাসীর কাছ থেকে থাকে আলাদা করতে পারবেনা। তিনি আর-ও বলেন পৌরবাসী চাইলে জীবনের শেষ নিঃস্বাস পর্যন্ত তাদের সাথে থাকব ইনশাআল্লাহ। একইভাবে দৃঢ বিশ্বাস নিয়ে তিনি বলেন
দুনিয়ার কোন শক্তি নেয় আমাকে টেকনাফ পৌরবাসীর কাছ থেকে আলাদা করতে পারবেনা।
তার পিতার মতো তিনিও
বন্দর বাসী নয় তার এলাকা বাসী নয়, পৌরবাসীর সুখে দুঃখের সাথী এবং মানুষের খেদমত করার জনই সব সময় কাজ করে যাবো। গেল টেকনাফ পৌর নির্বাচনে জনতাকে সাথে নিয়ে পৌর মেয়র পদে প্রার্থী হয়েছিল মানুষকে সেবা দেওয়ার জন্য। প্রার্থী হওয়ার সুবাদে পৌর বাসী সিআইপি আবদু শুক্কুরকে সমাদরে গ্রহন করেছিলেন হাজার হাজার নারী পুরুষ সহ মানুষের ভাল পেয়েছিলেন কিন্তু- পারিবারিক সিদান্তের কারণে উক্ত নির্বাচন থেকে নিজের প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নিয়েছিলন। সেই সময় তিনি সকলের আন্তরিক ভালবাসা ও সহযোগিতা পেয়ে সবার উদ্যোশে বলেছিলেন আমি ভবিষ্যতে যদি কোন সুযোগ পাই তাহলে আমার মরহুম পিতা এজাহার মিয়া কোম্পানির মত টেকনাফবাসীর খেদমত করে যাব। আবদু শুক্কুর সিআইপি
প্রতিবেদককে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে জানান  টেকনাফ পৌরসভার গেলবারের মেয়র প্রার্থী এবং সাবেক এমপি আবদুর রহমান বদির ছোট ভাই আবদু শুক্কুর সিআইপি এ কথা বলেন।
তবুও নৌকা প্রতিকের মেয়র নির্বাচনের জন্য দলীয় নেতা কর্মীও সাধারণ মানুষ যে ভাবে সমর্থন দিচ্ছেন তা অভুতপূর্ব।
এখানকার সাধারণ পৌরবাসী দীর্ঘ দিন ধরে নাগরিক সেবা ও যোগ্য নেতৃত্বের অভাবে রয়েছেন।
তারা শাষক নয়,সেবক চাই।
আমিও জনগণের সেবক হতে চাই তাই।
দোয়া করবেন যেন মানুষের সেবা করতে পারি।
কারন মানবসেবার চেয়ে শান্তি কোন পেশায় নেই। টেকনাফের তরুন আওয়ামী লীগ নেতা আবদু শুক্কুর সিআইপি টেকনাফ পৌর এলাকার ছাত্র ও যুব  সমাজের  বিনামূল্যে কম্পিউটার ট্রিনিংয়ের ব্যবস্হা করে দিয়েছেন। তার নিজের ব্যবসা ও হালাল টাকায় পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ড়ে রাস্তা সহ ড্রেইন নির্মান ও সুপ্রিয় পানির সমস্যা সমাদানের জন্য পানির ব্যবস্থা করেছেন।
এসব কর্মকান্ডারের জন্য
ইতোমধ্যে পৌরবাসীর নজর কেড়েছেন।
ফলে সেখানকার মানুষের মুখে মুখে চলছে ব্যাপক জল্পনা কল্পনা।
অনেকেই বলছেন,অতীতের সব তুলনায় শুক্কুর সিআইপি চতুর্দিকে যোগ্য। টেকনাফ পৌরসভার সব সমস্যা সমাধান করতে নিতি সব সময় মানুষের থাকবেন এবং
সাধারণ মানুষ হারানো নাগরিক সেবা ফিরে পাবেন।
আব্দু শুক্কুর সিআইপি নিজের ফেইসবুক ওয়ালে প্রতিদিন নতুন নতুন স্ট্যাটাস দিয়ে পৌরবাসীর সাথে আরও ঘনিষ্ঠ হচ্ছেন।
এক স্ট্যাটাসে তিনি লিখেছেন,  আসসালমু-আলাইকুম প্রিয় পৌরবাসী।
আশা করি আল্লাহর অসীম রহমতে আপনারা সবাই ভাল আছেন।
আপনাদের উদ্দেশ্যে কিছু কথা বলতে চাই।
আমি ধনী-গরিব সবাইকে সমান চোখে দেখি। আমার কাছে কোন প্রকার ভেদাভেদ বলতে নাই। আমি আজীবন অসহায় সাধারণ নাগরিকদের পাশে আছি, ইনশাআল্লাহ সামনেও থাকব।
যারা চাওয়া মাত্র সব হাতের নাগালে পায় তারা প্রকৃত অর্থে সুখি নয়। কারণ তাদের চাওয়াকে পেতে কষ্ট করতে হয় না। কষ্ট করে পাওয়া কিছু অতি সুখের ও শান্তিময় হয়। তাই আমাদের দুঃখ-কষ্ট ও কঠোর পরিশ্রম করে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। তাহলে আমরা অসম্ভবকে সম্ভব করতে পারব ইনশাআল্লাহ।
মানুষের জীবনে কঠিন সময় আসাটা খুব দরকার। কঠিন সময়ের কারণেই মানুষ সাফল্য উপভোগ করতে পারে। আমি  জনগণের সেবা করার আশা নিয়ে পথ চলি, সেজন্য কোনদিন আমাকে একা চলতে হবে না ইনশাআল্লাহ।
কারণ আপনারা আমার পাশেই আছেন, আশা করি সামনেও থাকবেন ইনশাআল্লাহ। অবশেষে মিথ্যা ও ষড়যন্ত্র
মামলা থেকে আমি আদালত কতৃক রায়ে বেকসুর খালাস পাওয়ার পর আপনারা যারা আমার জন্য মন থেকে আন্তরিক দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করেছেন
আমি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।
কারণ আজ আমি নিজের  কাজ নিজে করতে শিখেছি। আমি ভবিষ্যতেও আপনাদের পাশে থেকে সেবা করার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাবো। সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন পরিশেষে সবাই ভাল থাকবেন।