মোটরসাইকেল চুরি করে পালানোর সময় চোর আটক

গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী)প্রতিনিধি: রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার কৃষি অফিসের সামনে থেকে দিনদুপুরে মোটরসাইকেল চুরি করে পালানোর সময় এক চোরকে হাতেনাতে আটক করেছে স্থানীয় জনতা। এসময় অপর আরেক সদস্য পালিয়ে যায়। মঙ্গলবার (০৭ ডিসেম্বর) দুপুরে গোয়ালন্দ উপজেলা কৃষি অধিদপ্তরের সামনে এ ঘটনা ঘটে। জনতার হাতে আটক চোর ফরিদপুর কোতোয়ালি থানার আলিপুর গ্রামের রাসেল শেখ (৩৫)। সে স্থানীয় সামছু শেখ এর ছেলে।
জানা গেছে, উপজেলার উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. মিলন মন্ডল প্রতিদিনের মতো মঙ্গলবার সকালে অফিসে আসার পর বারান্দায় কালো রঙে ডিসকভার মোটরসাইলে (রাজবাড়ী হ-১২-৪৩৮৭) রেখে দাপ্তরিক কাজ করতে থাকেন। দুপুর ১২টার দিকে অফিস থেকে বের হয়ে খেয়াল করেন তার মোটরসাইকেলটি নেই। এসময় আটককৃত রাসেলসহ আরেকজন মিলে মোটেরসাইকেলটি নিয়ে পালিয়ে যাচ্ছে। মোটরসাইকেলটি বারান্দায় তালা মারা ছিল। এসময় তিনি চিৎকার দিলে স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় ধাওয়া দিলে অফিস থেকে প্রায় ১০০ গজ দূরে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের বিআইডব্লিউটিসির ওজন স্কেলের কাছে প্রতিরোধ পেয়ে মোটরসাইকেল ফেলে রেখে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এসময় হাতেনাতে রাসেল শেখকে আটক করতে পারলেও আরেকজন পালিয়ে যায়।পরে পুলিশ খবর পেয়ে আটক রাসেলকে থানায় নিয়ে যায়।
রাসেল স্বীকারোক্তিতে জানান, একই এলাকার ইমরাজ নামে আরো এক তরুণ ছিল। তার বাড়িও ফরিদপুর কতোয়ালী থানার লক্ষীপুর ষ্টেশন এলাকায়। ইমরাজ দুইদিন আগেই এই মোটরসাইকেলটি দেখে টার্গেট করেন। মঙ্গলবার দুপুরে একটু ফাঁকা পেয়ে সময়টা কাজে লাগায় ইমরাজ। ইমরাজই তালা ভেঙ্গে দেয় এবং আমি (রাসেল) গাড়িটি চালিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করি। এসময় অফিসের বারান্দা দিয়ে নামার সময় কয়েকজন দেখে ধাওয়া দেয়।
গোয়ালন্দ ঘাট থানার এস.আই দেওয়ান শামীম ঘটনার জানান, রাসেলকে জনগন ধাওয়া করে আটক করেছে। এসময় তার সহযোগি ইমরাজ পালিয়ে যায়। তাকে পুলিশ হেফাজতে এনে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মিলন মন্ডল বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন।মোটরসাইকেলটি জব্দ করা হয়েছে। আদালতের নির্দেশ পেলেই মালিককে ফেরত দেওয়া হবে।