মোটরসাইকেল  আমাদের অনেকের কাছেই খুব জনপ্রিয় একটি বাহন। প্রতিদিনকার চলার পথে রাস্তার ঝামেলা, গণপরিবহন ওঠার ঝামেলা এড়াতে অনেকেই মোটরসাইকেল ব্যবহার করে থাকেন। অনেকেই জানেনা যে মোটরসাইকেল নিয়ে রাস্তায় বের হলে  কি কি প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সঙ্গে রাখতে হবে। আমাদের যাত্রাপথে নিরাপদ ও ঝামেলা মুক্ত থাকতে আসুন জেনে নিই এই বিষয়ে বিস্তারিত। দৈনিক আমার সময়েরজীবনযাপন‘ বিভাগে -এ বিষয় লিখেছেন –খোরশেদ মাহমুদ। 

লাইসেন্স:  মোটরসাইকেল নিয়ে রাস্তায় বের হওয়ার আগে চালক হিসেবে আপনাকে প্রথমত যে বিষয়টি খেয়াল রাখতে হবে তা হলো লাইসেন্স। মোটরসাইকেল চালানোর সময় একজন চালক অবশ্যই সঙ্গে লাইসেন্স রাখবেন। মোটরসাইকেল ক্রয়ের সময় ক্রেতার ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকার প্রমাণপত্র দাখিল করতে না পারলে মোটরসাইকেল রেজিস্ট্রেশন দেবে না বিআরটিএ। অর্থাৎ ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া মোটরসাইকেল কিনলে ড্রাইভিং লাইসেন্স না পাওয়া পর্যন্ত চালক এবং মোটরসাইকেল দুটোই অবৈধ। পুলিশ অথবা যে কোনো আইন প্রয়োগকারী বাহিনী যেকোনো সময় আপনাকে আটক করতে পারে।

আরো পড়ুন: এক মিনিটে ফেসবুকের আয় কত?

রেজিস্ট্রেশন নম্বর: বাইক চালনোর ক্ষেত্রে রেজিস্ট্রেশন অনেক গুরুপূর্ণ। রেজিস্ট্রেশন ছাড়া বাইক চালালে, বাইক ডাম্পিংয়ে নেওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি। তাই ঝামেলামুক্ত ভাবে মোটরসাইকেল চালাতে রেজিস্ট্রেশন নম্বর খুব গুরুত্বপূর্ণ। এবং এটি  বাইকের বৈধ অস্তিত্ব সঙ্গে আপনার মালিকানা নিশ্চিত করে।

ট্যাক্স টোকেন: বাংলাদেশের রাস্তায় বৈধভাবে বাইক চালানোর জন্য ট্যাক্স টোকেনের প্রয়োজন। ট্যাক্স টোকেন হলো অনুমতিপত্র।

আরও পড়ুন: ডাস্ট অ্যালার্জি থেকে বাঁচতে ঘরোয়া টোটকা

ইনস্যুরেন্স: ইনস্যুরেন্স বাইকের জন্য রক্ষা কবজ। বাংলাদেশর আইন অনুযায়ী রাস্থায় বৈধভাবে বাইক চালাতে বাইকের ইনস্যুরেন্স বাধ্যতামূলক।

হেলমেট:  মোটরসাইকেল চালানোর সময় অবশ্যই হেলমেট পরতে হবে। আপনার মাথাকে সুরক্ষা রাখতে এবং মোটরসাইকেল চালানোর সময় পোকা বা অন্য কিছুর হাত থেকে রক্ষা পেতে হেলমেট পরা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এবং পুলিশি ঝামেলাও এড়িয়ে যেতে পারবেন। ট্রাফিক আইনে স্পষ্ট বলা আছে, মোটরসাইকেলের চালক ও পেছনের আরোহী উভয়কেই হেলমেট পরতে হবে।  আইন অনুযায়ী চালক ও আরোহী দুজনেরই হেলমেট পরা উচিত। এ ক্ষেত্রে চালকের ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা জরিমানাও হতে পারে। আমরা সচেতন না হলে এসব আইনকানুনও আদতে কাজে আসবে না। নিজের নিরাপত্তার দায়িত্বটা নিজেকেই নিতে হয়।

সম্পূর্ণ পোশাক: মোটরসাইকেল চলানোর সময় ফুল হাতা জামা ও ফুল প্যান্ট বাধ্যতামূলক। বেশির ভাগ ট্রাফিক সার্জেন্ট এ বিষয়টিতে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখেন। তবে নিজেকের সুরক্ষা রাখতে এবং নিয়ম মানার জন্য হলেও সম্পূর্ণ পোশাক পরা উচিত।

সু অথাবা কেডস: মোটরসাইকেল চালানোর সময় অবশ্যই সু অথবা কেডস পরা বাধ্যতামূলক। স্যান্ডেল পরে বাইক চালানো আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। সু বা কেডস না পরার কারণে মামলার সম্মুখীন হতে পারেন। নিরাপদ ভ্রমণ ও চলাচলের জন্য অবশ্যই ট্রাফিক আইন মেনে চলুন। মোটরসাইকেল চালানোর সময় নিরাপত্তার সবার আগে প্রয়োজন তাই যখনই মোটরসাইকেল চালাবেন অবশ্যই সেফটি গিয়ারগুলো পরে নিবেন। ঝুঁকি নেবেন না এবং নিজের নিরাপত্তার পাশাপাশি আশেপাশের মানুষের নিরাপত্তার কথাও বিবেচনা করবেন।