মারা গেলেন ১২ মৌজা পাল সমাজের সভাপতি হরিসাধন পাল

শিপন পাল, সদর প্রতিনিধি (কক্সবাজার): মারা গেছেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ অঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী সমাজ সংগঠন চট্টগ্রাম-কক্সবাজার ১২ মৌজা পাল সমাজ কেন্দ্রিয় কমিটির সভাপতি হরিসাধন পাল। গতকাল ২৪ নভেশ্বর বুধবার দুপুর ১:৪০ মিনিটে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বার্ধক্যজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। ওইদিনই রাত ১১টায় কক্সবাজার কেন্দ্রিয় মহা-শ্মশানে তাঁর শেষকৃত্য অনুষ্ঠিত হয়। তিনি এক পুত্র ও কন্যা সহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন ও শুভাকাংখি রেখে গেছেন।

স্বর্গীয় হরিসাধন পালের পৈত্রিক নিবাস দ্বীপ উপজেলা মহেশখালী পৌরসভাস্থ পুবিবিলা এলাকায়। তাঁর বাবার নাম স্বর্গীয় ঈশ্বর চন্দ্র পাল। তবে তিনি দীর্ঘ সময় ধরে কক্সবাজার গোলদীঘির পাড়স্থ এলাকায় স্থায়ীভাবে বসবাস করে আসছেন। তিনি বাংলাদেশ সুপ্রীমকোর্ট, হাইকোর্ট বিভাগ ও চট্টগ্রাম জজ কোর্টের স্বনামধন্য আইনজীবী এডভোকেট সেবক পালের গর্বিত পিতা।

স্বর্গীয় হরিসাধন পাল চট্টগ্রাম দক্ষিণ অঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী সমাজ সংগঠন ১২ মৌজা পাল সমাজের সভাপতি ছিলেন। অর্থাৎ চট্টগ্রাম জেলার গাছবাড়িয়া, সাতবাড়িয়া, হাশিমপুর, বাঁশখালীর কালিপুর, বাণিগ্রাম, পালেগ্রাম, বাহারছড়া, কক্সবাজার জেলার মহেশখালী, হোয়ানক, খুরুশকুল, কক্সবাজার, কুতুবদিয়া এলাকা পাল সমাজের নেতৃবৃন্দ দিয়ে এসেছেন। তার দিক নির্দেশনায় এই ১২টি সমাজের লোক সবসময় ঐক্যবদ্ধ থাকতেন।

এছাড়া স্বর্গীয় হরিসাধন পাল কক্সবাজার শহরে ও শহরের বাইরে নিজ উদ্যোগে কয়েকটি গীতাস্কুল প্রতিষ্ঠা করেছেন। তিনি নিজেই এসব গীতা স্কুলে শিক্ষকতা করে ধর্মীয় শিক্ষা দিয়েছেন আজীবন। তিনি কক্সবাজার সংস্কৃতি কলেজের সাথেও ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন। তিনি কক্সবাজারস্থ প্রায় সংগঠনের উপদেষ্টা ছিলেন। কয়েকটি ধর্মীয় পুস্তকের প্রণেতা তিনি। তার জীবদ্দশায় তিনি ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে সকলের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন এবং সকলের প্রিয়জন ছিলেন। তাঁকে হারিয়ে কক্সবাজার ও চট্টগ্রাম দক্ষিণাঞ্চলের সনাতনী সম্প্রদায় শোকাহত।

Attachments area