বেনাপোলে ৯ শিশু শিক্ষার্থীর মৃত্যু দিবসে শোকাবহ বেনাপোল বাসী

কামাল হোসেন, বেনাপোল থেকেঃ বেনাপোল বন্দর এলাকায় অবস্থিত সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পিকনিকের বাস দূর্ঘটনায় ৯ শিশু শিক্ষার্থীর মৃত্যু দিবসে দোয়া, শোক র‍্যালি, স্মরণ সভা ও বিদ্যালয়ের সম্মুখে বেনাপোল পৌরসভা কর্তৃক স্থাপিত ৯টি কবুতর সংবলিত শহীদ বেদীতে পুস্পস্তবক প্রদান অনুষ্ঠিত হয়।

মঙ্গলবার(১৫ ফেব্রুয়ারী) শোকাবহ দিবসটিকে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালনের লক্ষ্যে দিনব্যাপি অনুষ্ঠান কর্মসুচিতে অংশ নিতে নিহতদের অভিভাবক,ঐ স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকা, নিহতদের সহপাঠি শিক্ষার্থীগন, বেনাপোলের অন্যান্য স্কুল-মাদ্রাসা ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী,শিক্ষক-শিক্ষিকাগণ, সমাজের বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী,কবি,সাহিত্যিক,লেখক,সাংবাদিক,  বেনাপোল পৌর মেয়র,পৌর কার্যালয়ের কর্মকর্তা/কর্মচারীবৃন্দ, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা-নেতৃবৃন্দ সহ বন্দর এলাকার সকল শ্রেণী পেশার মানুষ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সম্মুখে উপস্থিত হতে থাকেন।

সকলের উপস্থিতিতে শিক্ষার্থীদের ঐ বিশাল শোক  র‍্যালি সকাল ১১টার দিকে স্কুল প্রাঙ্গণ থেকে বের হয়ে প্রায় দুই কিলোমিটার রাস্তা অতিক্রম করে বেনাপোল বাজার প্রদক্ষিন শেষে পুণরায় স্কুলের সম্মুখে এসে র‍্যালির কর্মসূচি শেষ হয়। এরপর ৯ শিশু শিক্ষার্থীর শহীদ বেদীতে একে একে সকলেই ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানাতে থাকে।

শোকদিবসে সংক্ষিপ্তাকারে বক্তব্য দিতে গিয়ে বেনাপোল পৌর মেয়র মোঃ আশরাফুল আলম লিটন বলেন, “আমাদের বেনাপোলের সকলের প্রাণপ্রিয় ৯ প্রাথমিক শিশু শিক্ষার্থীর পিকনিকের বাস দূর্ঘটনায় নিহতের কারনে আমরা বেনাপোলবাসী গভীরভাবে শোকাহত। তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা সহ শোক সন্তপ্ত পরিবারের জন্য সমবেদনা জানায়”। এমময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন,বিশিষ্ঠ শিক্ষাবীদ ও যশোর জেলা শাখা আ.লীগ উপদেষ্টা-আহসান উল্লাহ মাস্টার, পৌর প্যানেল মেয়র, কমিশনার- মোঃ শাহাবুদ্দিন মন্টু,কমিশনার-মিজানুর রহমান, কবি বকুল হক ,সুকুমার দেবনাথ,জাকির হোসেন,ছাত্র নেতা-আরিফুজ্জামান আরিফ,দ্বীন মোহাম্মাদ সহ অনেকেই।

নিহত শিশুদের এবং শোকাহত পরিবারবর্গের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়ে স্কুল প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের সভাপতিত্বের শোক সভায় অংশ নিয়ে নিজের অবস্থান থেকে বক্তব্য দিতে গিয়ে বেনাপোল পৌর আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ নাসির উদ্দিন বলেন, “৯ জন শিশু শিক্ষার্থীকে আর হয়তো আমরা ফিরে পাবো না,তবে মহান ‘রাব্বুল আলামীন’ এর নিকট আমাদের একটিই প্রার্থনা ” আল্লাহপাক” তাদেরকে যেন বেহেস্ত নসীব করেন এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারকে শোক বহণ করার শক্তি প্রদান করেন,আমিন।

এ সময় আলোচনায় অংশ নেন,পৌর আ.লীগ সভাপতি-আলহাজ্ব এনামুল হক মুকুল,৪ নং বেনাপোল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান- মোঃ বজলুর রহমান, বেনাপোল পৌরবাসীর আহবায়ক-মোস্তাক হোসেন স্বপন,শার্শা উপজেলার যুবলীগ সভাপতি ও যশোর জেলা পরিষদ সদস্য-অহিদুজ্জামান অহিদ, বন্দর শ্রমিক নেতা ভাদু ভাই, পৌর স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি-জুলফিকার আলী মন্টু, সাধারণ সম্পাদক- মোঃ কামাল হোসেন,সাংগঠনিক সম্পাদক- নাজিম উদ্দিন রাব্বি, পৌর ছাত্রলীগ সাবেক সভাপতি-আব্দুল্লাহ-আল-মামুন,সাবেক সাধারণ সম্পাদক- তৌহিদুল ইসলাম তৌহিদ, মোঃ কামাল হোসেন(সাবেক পৌরছাত্রলীগ যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও বড় আঁচড়া রাসেল স্মৃতি সংঘের প্রতিষ্ঠাতা)।

উল্লেখ্য,২০১৪ সালের ১৫ ই ফেব্রুয়ারী বেনাপোল বন্দর এলাকার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা শিক্ষা সফরে মেহেরপুরের মুজিবনগরে যায়। সেখান থেকে ফেরার পথে চৌগাছার ঝাউতলা কাঁদবিলা নামক স্থানে বাসটি রাস্তার পাশে একটি পুকুরে ছিটকে পড়ে। এ দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলে নিহত হয় সাত শিশু শিক্ষার্থী এবং আহত হয় আরো ৭০ শিশু শিক্ষার্থীসহ চারজন শিক্ষক। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরো দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়।

দুর্ঘটনায় নিহতরা হলেন- বেনাপোল পৌরসভার ছোটআঁচড়া গ্রামের সৈয়দ আলীর দুই মেয়ে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী সুরাইয়া ও তার বোন তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী জেবা আক্তার, একই গ্রামের ইউনুস আলীর মেয়ে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী মিথিলা আক্তার, রফিকুল ইসলামের মেয়ে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী রুনা আক্তার মীম, লোকমান হোসেনের ছেলে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র শান্ত, গাজিপুর গ্রামের সেকেন্দার আলীর ছেলে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র সাব্বির হোসেন ও নামাজ গ্রামের হাসান আলীর মেয়ে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী আঁখি, ছোট আঁচড়া গ্রামের মনির হোসেনের ছেলে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র ইকরামুল এবং একই গ্রামের ইদ্রিস আলীর ছেলে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী ইয়ানুর রহমান।

এই দিনটি ঘিরে আজ যশোর জেলার চৌগাছা উপজেলা ও শার্শা উপজেলার বিভিন্ন সামাজিক,রাজনৈতিক সংগঠন ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কালো পতাকা উত্তোলন, শোক র‌্যালি ও দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।