বিপিএল: সিলেট পর্বের ইতি ঘটছে আজ

আমার সময় ডেস্ক: না, বিপিএলের লিগ পর্বের আকর্ষণ শেষ হয়ে যায়নি। মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকার বিপক্ষে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের জয়ই লিগের আকর্ষণ বাঁচিয়ে রেখেছে। টানটান উত্তেজনার ম্যাচে চট্টগ্রাম জয়ী হয়েছে ৩ রানে। চট্টগ্রামের ৬ উইকেটে ১৪৮ রানের জবাব দিতে গিয়ে ঢাকার শেষ ওভারে প্রয়োজন ছিল ৯ রানের। ক্রিজে জাতীয় দলের ওপেনার তামিম ইকবাল। পরে আসেন আরেক ওপেনার মোহাম্মদ নাঈম। পেন্ডুলামের মতো দুলেছে ম্যাচ। একটি ওয়াইড বলের সঙ্গে একটি নো বলও ছিল। নো বল ছিল শেষ বলে। ঢাকার প্রয়োজন ছিল ৫ রানের। ফ্রি হিট। একমাত্র রান আউট ছাড়া আর কোনো আউট হওয়ার সুযোগ নেই। কিন্তু তারপরও ঢাকা সেই সুযোগ কাজে লাগাতে পারেনি। নাঈমের ব্যাট থেকে মাত্র ১ রান আসে। এই জয়েই চট্টগ্রামকে প্লে অফ রাউন্ডের লড়াইয়ে পঞ্চম দল হিসেবে টিকিয়ে রাখে। ৬ দলের আসরে সিলেট সানরাইজার্স আগেই বাদ পড়ে গেছে। এখন চট্টগ্রাম প্লে অফে যেতে পারবে কি না তার ফয়সালা হবে ঢাকাতে।

এদিকে সিলেট পর্বের আজ ইতি ঘটতে যাচ্ছে। আজ দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে স্বাগতিকদের প্রতিপক্ষ কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস। দিনের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হবে খুলনা টাইগার্স ও মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকা। স্বাগতিক হিসেবে সিলেটের প্রতিদিনই ম্যাচ। কিন্তু দলটির অবস্থা আসরে মোটেই ভালো নয়। প্রথম দল হিসেবে তারা আসর থেকে বিদায় নেয়। জেতা যেন ভুলেই গেছে। নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে ঢাকাকে হারিয়ে তারা পেয়েছিল একমাত্র জয়। এরপর  ফরচুন বরিশালের সঙ্গে ম্যাচটি বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হলে তারা অপর পয়েন্ট পেয়েছিল। সিলেটের ম্যাচ বাকি দুটি। শুধুই নিয়ম রক্ষার। তবে প্রতিপক্ষের জন্য আবার মহা মূলবান। তাদের রয়েছে প্লে অফে যাওয়ার সুযোগ। সব কিছু হারানো সিলেটের কাছে তারপরও সিলেটবাসীর চাওয়া স্বাগতিক হিসেবে অন্তত একটি জয়। যে জয় হবে শান্তনার।

সিলেট আসর থেকে বিদায় নিলেও তাদের ব্যাটিং ছিল প্রশংসনীয়। আসরের বড় দু’টি সংগ্রহই হয়েছে তাদের বিপক্ষে। একটিতে চট্টগ্রাম ৫ উইকেটে ২০২ রান করার পরও সিলেট পাল্টা জবাব দিয়েছিল ৬ উইকেটে ১৮৬ রান করে। গতকাল মঙ্গলবার বরিশালও তাদের বিপক্ষে করেছিল ৪ উইকেটে ১৯৯ রান। সিলেটও ছেড়ে কথা বলেনি। ৬ উইকেটে ১৮৭ রান করে জবাব দিয়েছিল। আরেকটি ম্যাচে তারা ৫ উইকেটে ১৭৫ রান করেও ঢাকার কাছে হেরেছিল ৯ উইকেটে। এই ম্যাচে আবার সিলেটের হয়ে লিন্ডল সিমন্স (১১৬) ও ঢাকার হয়ে তামিম ইকবাল (অপরাজিত ১১১) পাল্টাপাল্টি সেঞ্চুরি করেছিলেন। সেই সিলেট আজ নিজেদের মাঠে শেষ ম্যাচ খেলতে নামবে কুমিল্লার বিপক্ষে। যে কুমিল্লার কাছে তারা ঢাকায় নিজেদের প্রথম ম্যাচে মাত্র ৯৭ রান করেও লড়াই করে হেরেছিল মাত্র ২ উইকেটে। আজ যদি সিলেট প্রতিশোধ নিতে পারে, তাহলে একই সঙ্গে এলাকাবাসীকে একটি শান্তনার জয়ও উপহার দিতে পারবে। কিন্তু একদা পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা কুমিল্লা কি সিলেটকে ছেড়ে কথা বলবে? তাদের লক্ষ্যে পয়েন্ট টেবিলের উপরের দিকে। এই ম্যাচ জিতলে সেই লক্ষ্য পূরণে অনেকটা এগিয়ে যাবে।

আগের দিন মঙ্গলবার চট্টগ্রাম জয়ী হওয়াতে প্লে অফ রাউন্ডের লড়াইয়ে দারুণভাবে জমে উঠেছে। শেষ চারে উঠতে পাঁচ দলের লড়াই। আসলে বলা যায় ২টি স্থানের জন্য ৩ দলের লড়াই। বরিশাল নিশ্চিত করেছে সবার আগে। কুমিল্লাও এক পা দিয়ে রেখেছে। বাকি দু’টি স্থানের জন্য চট্টগ্রাম-খুলনা-ঢাকার মধ্যে লড়াই। সেই লড়াইয়ে আজ দিনের প্রথম ম্যাচ খেলতে নামবে খুলনা ও ঢাকা। পয়েন্ট টেবিলে এগিয়ে আছে খুলনা। তাদের পয়েন্ট ৭ ম্যাচে ৮। উল্টোটা ঢাকার, ৮ ম্যাচে পয়েন্ট ৭। দুই দল পরস্পরের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে এবারের আসর শুরু করেছিল। যেখানে ঢাকার করা ৬ উইকেটে ১৮৩ রান খুলনা টপকে গিয়েছিল ১৯ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে। ঢাকা প্রতিশোধ নিতে পারলে এগিয়ে যাবে। খুলনা পুনরাবৃত্তি ঘটাতে পারলে প্লে অফ রাউন্ড খেলা নিশ্চিত হয়ে যাবে