বিএনপি নেতার মেয়ে কোটালীপাড়া যুব মহিলা লীগের আহবায়ক

  • কাশিয়ানী সাংবাদদাতা 

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতির মেয়েকে আহবায়ক করে উপজেলা যুব মহিলা লীগের কমিটি গঠন করা হয়েছে। এছাড়া পৌরসভার বাইরের একজন সংরক্ষিত নারী ইউপি সদস্যকে পৌরসভা শাখার সদস্য সচিব করা হয়েছে। এ নিয়ে জেলাজুড়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে।

মঙ্গলবার কোটালীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে যুব মহিলা লীগের ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিলে যুব মহিলা লীগের উপজেলা ও পৌর শাখার আহবায়ক কমিটি গঠিত হয়।কাউন্সিলে প্রধান অতিথি ছিলেন কোটালীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ভবেন্দ্রনাথ বিশ্বাস ও বিশেষ অতিথি ছিলেন সাধারণ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আয়নাল হোসেন শেখ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মতিয়ার রহমান হাজরা ও জেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি পার্সিয়া সুলতানা।

সভাপতিত্ব করেন যুব মহিলা লীগের কেন্দ্রীয় সিনিয়র সহ-সভাপতি গাজী আফরোজা বিনতে মনসুর লিপি।

সম্মেলনে কোটালীপাড়া উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি সাইদুর রহমান তালুকদারের মেয়ে রওশন আরা খানম মিলিকে আহবায়ক ও রুবি বিশ্বাসকে সদস্য সচিব করে কোটালীপাড়া উপজেলা শাখা এবং শাবানা জেসিকে আহবায়ক ও কোটালীপাড়ার হিরন ইউনিয়নের সংরক্ষিত নারী ইউপি সদস্য তপু বিশ্বাস কল্পনাকে সদস্য সচিব করে কোটালীপাড়া পৌর শাখা যুব মহিলা লীগের কমিটি গঠিত হয়।

ওইদিনই উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ভবেন্দ্র নাথ বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক আয়নাল হোসেন শেখ ও সাংগঠনিক সম্পাদক মতিয়ার রহমান হাজরা নবগঠিত কমিটিতে স্বাক্ষর করেন।

এদিকে বিএনপির সাবেক সভাপতির মেয়েকে কোটালীপাড়া উপজেলা শাখার আহবায়ক ও পৌরসভার বাইরের ওই উপজেলার হিরন ইউনিয়নের সংরক্ষিত নারী ইউপি সদস্যকে পৌর যুব মহিলা লীগের সদস্য সচিব করায় কোটালীপাড়ার মুজিব আদর্শের সৈনিকদের মধ্যে ব্যাপক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। নেতাকর্মীদের প্রশ্ন, কোটালীপাড়ায় কেউ  কি ছিল না, যে বিএনপির লোকজনকে দলের দায়িত্বশীল পদে আনতে হবে।

এছাড়া ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে কেন আহবায়ক কমিটি গঠিত হলো? এ নিয়ে অনেকে মুখ খুলেতে শুরু করেছেন। গোটা জেলাজুড়ে চলছে বিতর্কের ঝড়।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বিষয়টি স্বীকার করে কোটালীপাড়া উপজেলা যুব মহিলা লীগের নবগঠিত কমিটির আহবায়ক রওশন আরা মিলি জানান, তার বাবা কোটালীপাড়া উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ছিলেন।

কোটালীপাড়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি এসএম মহিউদ্দিন বলেন, মিলির বাবা মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত জিয়াউর রহমানের আদর্শের সৈনিক হিসেবে সক্রিয়ভাবে রাজনীতি করেছেন। তিনি ২০০৭ সাল পর্যন্ত কোটালীপাড়া উপজেলা শাখা বিএনপির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

এ বিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ভবেন্দ্রনাথ বিশ্বাস ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বিএনপির সাবেক সভাপতির মেয়ে মিলিকে যুব মহিলা লীগের আহবায়ক ও পৌরসভার বাইরের একজন সংরক্ষিত নারী ইউপি সদস্যকে পৌরসভা শাখার সদস্য সচিব করা হয়েছে। এ নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে