বঙ্গবন্ধু রাজনৈতিক নেতৃত্বে এক অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছিলেন…শিল্পমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন এমপি বলেন, বঙ্গবন্ধু এমন এক ব্যক্তি, যিনি রাষ্ট্রীয় ও গণমানুষের স্বার্থে নিজের জীবনের গুরুত্বপূর্ণ সময়গুলোকে ব্যয় করেছিলেন। রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে তিনি ছুটে গেছেন দেশের এই প্রান্ত থেকে ওই প্রান্তে। গণতন্ত্রের পক্ষে জনমত গড়ে তুলতে অনাহারে, অর্ধাহারে তৃণমূল নেতৃবৃন্দের সঙ্গে ছিলেন। নেতাকর্মীদের মধ্যকার সুসম্পর্ক স্থাপন এবং তথ্যের নিবিড় প্রচারণায় নিবেদিতপ্রাণ ছিলেন শেখ মুজিবুর রহমান। তারুণ্যের দীপ্তি ছড়িয়ে রাজনৈতিক নেতৃত্বে এক অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছিলেন।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু মানে এক আপসহীন নেতার নেতৃত্ব। তিনি কখনোই পিছু হটার মতো ব্যক্তি ছিলেন না। বীরদর্পে শুধু সামনের দিকেই ছুটেছেন। এনে দিয়েছেন একটি সার্বভৌম সোনার বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধুর বর্তমান অবস্থান তাঁকে কেউ উপহার দেয়নি, বরং তিনি তাঁর যোগ্যতায় বাঙালি জাতির পিতার আসনটি অর্জন করে নিয়েছেন। বঙ্গবন্ধু’র সব ভাবনার কেন্দ্রবিন্দু ছিল বাংলা, বাঙালি এবং বাংলাদেশের মানুষের মুক্তি।

বাংলাদেশ শিল্প কারিগরি সহায়তা কেন্দ্রের (বিটাক) উদ্যোগে মুজিব জন্মশতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে আলোচনা সভা, ক্রীড়া প্রতিযোগিতা এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিল্পমন্ত্রী এসব কথা বলেন। বিটাকের মহাপরিচালক আনোয়ার হোসেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার এমপি। এতে অন্যদের মধ্যে শিল্প মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো: জাফর উল্লাহ্‌সহ মন্ত্রণালয় এবং বিটাকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান অগ্রগতিতে বিটাকের অবদান প্রশংসা করে মন্ত্রী বলেন, প্রশিক্ষণের মাধ্যমে শিল্পখাতে দক্ষ জনবল তৈরি ও টেকসই প্রযুক্তি হস্তান্তরের ক্ষেত্রে বিটাক এক অনন্য প্রতিষ্ঠান। বিটাকের প্রশিক্ষিত জনবল অভ্যন্তরীণ শিল্পখাতে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির পাশাপাশি বিদেশে দক্ষ জনশক্তি হিসেবে কাজ করে দেশের সুনাম বৃদ্ধি করেছে। রেমিটেন্স অর্জনের ক্ষেত্রে বিটাকের প্রশিক্ষিত জনবলের অবদান উল্লেখযোগ্য। তাছাড়া সূচনালগ্ন থেকেই বিটাক দেশের অসংখ্য শিল্প প্রতিষ্ঠানকে আমদানি বিকল্প পণ্য উৎপাদনে কারিগরি ও প্রযুক্তিগত সহায়তা দিয়ে আসছে। এর পাশাপাশি দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের অসংখ্য বেকার যুবক ও যুব মহিলাদের সেপা ও সেইপ প্রকল্পের আওতায় হাতে-কলমে কারিগরি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে সরাসরি চাকরিতে নিয়োগ এবং নতুন এসএমই উদ্যোক্তা তৈরিতে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার এমপি বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে বঙ্গবন্ধু এক উজ্জ্বল ধ্রুবতারা। তাঁর নেতৃত্বে ২৪ বছরের রাজনৈতিক সংগ্রাম ও মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে জন্ম নিয়েছে স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ। তিনি বঙ্গবন্ধু সুযোগ্য উত্তরাধিকারী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে বিটাকের গবেষণার মাধ্যমে কৃষি যন্ত্রপাতিসহ নতুন নতুন যন্ত্রপাতির ওপর গুরুত্ব দেয়। এছাড়া, বেকার যুবকের প্রশিক্ষণ দিয়ে চাকরির ব্যবস্থা করত এবং উদ্যোক্তা তৈরিকরাসহ সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোক্তাদের শিল্পায়নের প্রত্যক্ষ ভূমিকার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।