ফেয়ারওয়েল ম্যাচ খেলতে রাজি হননি কোহলি

স্পোর্টস ডেস্ক: বিরাট কোহলি চাইলে ফেব্রুয়ারির শেষের দিকে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে বেঙ্গালুরুতে তার ১০০তম টেস্ট উদযাপন করার পর, ধুমধাম করে এই ফরম্যাটের নেতৃত্ব থেকে সরে দাঁড়াতে পারতেন। বেঙ্গালুরু, যা আবার কোহলির আইপিএল দলের ঘরের মাঠ।

সূত্রের বরাত দিয়ে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমস জানায়, কোহলি পদত্যাগের সিদ্ধান্ত জানানোর পর বিসিসিআইয়ের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) ফোনে কোহলিকে অধিনায়ক হিসেবে বিদায়ী ম্যাচ এবং বেঙ্গালুরুতে একটি উৎসবের প্রস্তাব দিয়েছিলেন। সেটা অবশ্য প্রত্যাখ্যান করেন কোহলি। তিনি জানান, ‘একটি ম্যাচে কোনো পার্থক্য হবে না। আমি এমনটা নই।’

ভারতের অধিনায়কদের মধ্যে কোহলি টেস্টে সফলতম। তবু টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে তার শেষটা দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ম্যাচে হার দিয়ে হলো। এর আগে মহেন্দ্র সিং ধোনি ৯০ ম্যাচ খেলার পর, ২০১৪ সালে মেলবোর্ন টেস্ট ড্র হওয়ার পর এই ফরম্যাট থেকেই অবসর নিয়েছিলেন। সেই সময়ে টেস্ট দলের ব্যাটন কোহলির হাতে তুলে দেওয়া হয়েছিল।

শনিবার (১৫ জানুয়ারি) টুইটে পদত্যাগের ঘোষণা দেওয়ার সময় কোহলি যে দুজনকে ধন্যবাদ জানিয়েছিলেন, ধোনি তাদের একজন। তিনি লিখেছিলেন, ‘এমএস ধোনিকে অনেক ধন্যবাদ যিনি আমাকে একজন অধিনায়ক হিসেবে বিশ্বাস করেছিলেন এবং আমাকে একজন সক্ষম ব্যক্তি হিসেবে দেখেছিলেন, যে ভারতীয় ক্রিকেটকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে।’

কোহলি নিজের সিদ্ধান্ত প্রকাশ্যে ঘোষণা করার আগে দলের প্রধান কোচ রাহুল দ্রাবিড় এবং সতীর্থদের এই কথা জানান। তার পরই বিসিসিআই কর্তাদের সঙ্গে কথা বলেন। যদিও বিসিসিআই তাকে আরও একটি সিরিজের দায়িত্ব নিতে বলেছিল; কিন্তু কোহলি তা নিতে আর রাজি হননি।