ফরচুন বরিশালের জার্সি উন্মোচন অনুষ্ঠানে সাকিব ‘দেশি ক্রিকেটারদের জন্য বড় সুযোগ’

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রথমে দেখে বোঝার উপায় ছিল না এটি একটি খেলার অনুষ্ঠান। মঞ্চে সব রাজনৈতিক নেতারা। আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলির সদস্য আমির হোসেন আমু থেকে শুরু করে মৎস্য ও পানিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, সাংসদ গোলাম কিবরিয়া, ইলিয়াস মোল্লা, জাতীয় পার্র্টির আবু হোসেন বাবলাসহ আরও অনেকেই। যে কারও মনে হবে এটি কোনো রাজনৈতিক অনুষ্ঠান। তবে এরা সবাই রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব হলেও তাদের বক্তব্যে ছিল না কোনো রাজনৈতিক কথা। সেখানে ছিল খেলা নিয়ে কথা। তখনই অনেকটা বোঝা যায়, না এটা কোনো রাজনৈতিক অনুষ্ঠান নয়, খেলারই অনুষ্ঠান। আর সেটিই শতভাগ ফুঠে উঠে সাকিবের নেতৃত্বে ফরচুন বরিশালের ক্রিকেটাররা একে একে মঞ্চে উঠে আসলে। ব্যাপক জাঁকজমক আয়োজনের মধ্য দিয়ে রাজধানীর গুলশানের হোটেল শেরাটনে অনুষ্ঠিত হয় ফরচুন বরিশালের জার্সি উন্মোচন অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে সবার আগে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ফরচুন বরিশালের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান।

অনেক রাত পর্যন্ত চলা অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে সাংবাদিকেদের মুখোমুখি হন সাকিব। এবার ভালোমানের বিদেশি ক্রিকেটার না থাকাতে অনেক দলই হয়তো কোটা পূরণ করে সেরা একাদশ সাজাবে না। সাকিব এটিকে দেশি ক্রিকেটার মেলে ধরার সুযোগ বলে মনে করছেন। তিনি বলেন, ‘দেশি ক্রিকেটারদের জন্য তো বড় একটা সুযোগ, বড় একটা মঞ্চ নিজেদের মেলে ধরার, নিজেদের পারফরম্যান্স দিয়ে জাতীয় দলে আসার। আমি বিশ্বাস করি এখান থেকে আমরা ২ কিংবা ৩ জন নতুন খেলোয়াড় পাব, যারা বাংলাদেশকে অন্তত টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে প্রতিনিধিত্ব করতে পারবে।’

নিজ দল নিয়ে আশবাদ ব্যক্ত করে সাকিব বলেন, ‘দেশি-বিদেশি তুলনা করতে চাই না বা কার গুরুত্ব বেশি, কার গুরুত্ব কম, সেটা বলতে চাই না। মাঠে ১১ জন খেলবে। বাইরে ডাগআউটে যারা থাকবে, সবাই মিলে যদি একসঙ্গে কাজ করতে পারি, তাহলে ফলাফল আসা সম্ভব। আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি আমরা খুব ভারসাম্যপূর্ণ একটি দল। খেলা শুরু হলে কিছু কিছু ঘাটতি দেখা দিতে পারে, যেগুলো কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করব।’ সাকিব আগেও বলেছেন, মঙ্গলবার রাতেও আবার জানালেন বরিশালবাসীকে তিনি শিরোপা উপহার দিতে চান।

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট মানেই চার ছক্কার ঝনঝনানি। কিন্তু বিপিএলে হয় উল্টো। এখানে চলে উইকেট পতনের ঝনঝনানি। থাকে রান খরা। এর মুখ্য কারণ পিচ। কিন্তু এবার পিচ ভালো হবে বলে আশা করছেন দলের কোচ খালেদ মাহমুদ সুজন। তিনি বলেন, ‘মিরপুরে ভালো একটা বিরতি ছিল। যেহেতু মিরপুর থেকে বিপিএল শুরু হচ্ছে, আশা করি ভালো উইকেট হবে। চট্টগ্রামে তো ভালো উইকেট। সিলেটও আশা করি ভালো উইকেট তৈরির জন্য যথেষ্ট সময় পাবে।’