পুলিশের সর্বোচ্চ ২য় স্বীকৃতি পেলেন ওসি রফিকুল ইসলাম ও তার ব্যাচমেট এসএম শাহজালাল

মাসুদ রানা,সিনিয়র রিপোর্টার: ‘পুলিশ সপ্তাহ ২০২২’ উপলক্ষে ২০২০ ও ২০২১ সালের প্রশংসনীয় এবং ভালো কাজের স্বীকৃতি হিসেবে বৃহস্পতিবার  (৩ ফেব্রুয়ারি) রাজারবাগ পুলিশ লাইনস মাঠে ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ-আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদের পক্ষ থেকে ডিএমপি কমিশনার শফিকুল ইসলাম ১৬১ জন পুলিশ সদস্যকে আইজিপি ব্যাজ প্রদান করা হয়।

কর্মক্ষেত্রে সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্বপালন, বাহিনীর মর্যাদা বেড়েছে এমন কার্যক্রমের পাশাপাশি,আইনশৃঙ্খলা রক্ষা, জননিরাপত্তা বিধান, জনসেবামূলক কার্যক্রম, মামলার রহস্য উদঘাটন,ভালো পুলিশিং,সরকারি ও ব্যক্তিগত কাজের মাধ্যমে পুলিশ বাহিনীর ভাবমূর্তি বাড়ানোসহ বিভিন্ন ভালো কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ পুলিশ সপ্তাহে আইজিপি ব্যাজে মনোনীত হোন ২০০১ ব্যাচ এর দুই পুলিশ কর্মকর্তা ।তাদের মধ্য একজন হলেন জাতিসংঘ শান্তি পদক প্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা ডিএমপির রামপুরা থানার অফিসার ইনচার্জ,মোঃ রফিকুল ইসলাম,বিপিএম সেবা,ও এসএম শাহজালাল,পুলিশ পরিদর্শক(নিরস্ত্র) সিটিটিসি ডিএমপি।

আইজিপি ব্যাজপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা ও সদস্যদের উদ্দেশে ডিএমপি কমিশনার শফিকুল ইসলাম বলেছেন,পুলিশের বিপুল সংখ্যক সদস্য,যারা ভালো কাজ করেছেন,তাদের সবাইকে আইজিপি স্যার এই পদক দিয়ে গর্বিত করেছেন। সেজন্য আইজিপির প্রতি আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। যে ভালো কাজ আমরা করে যাচ্ছি, তা যেন আমরা অব্যাহত রাখি।আপনারা ভবিষ্যতে আরও ভালো কাজ করবেন, যেন বিপিএম, পিপিএম পদক পেতে পারেন।’ যারা পদক পেয়েছেন, তারা এমন কোনও কাজ করবেন না, যাতে ‘আইজিপি ব্যাজ’-এর প্রতি অসম্মান হয়, বাহিনীর অসম্মান হয়।

এই স্বীকৃতি নিয়ে দুই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন,বাংলাদেশ পুলিশের ২য় সর্বোচ্চ স্বীকৃতি (আইজি ব্যাজ) ।যেকোনো স্বীকৃতি যে কাউকে তার কাজের প্রতি উৎসাহিত করে ।এই স্বীকৃতি আমাদের আরো উৎসাহিত করেছে।সর্বপরি আপনাদের সকলের সার্বিক সহযোগিতা আন্তরিক ভালোবাসা আমাদেরই অর্জন,সকলের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেছেন তারা।