পরিবেশমন্ত্রী শাহাব উদ্দিন করোনায় আক্রান্ত

মো. শাহাব উদ্দিন

নিজস্ব প্রতিবেদক: পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য অফিসার দীপংকর বর বৃহস্পতিবার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

উপসর্গ থাকায় গতকাল বুধবার রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানে (আইইডিসিআর) নমুনা দেওয়া হয়। আজ (বৃহস্পতিবার) রিপোর্ট পজিটিভ বলে জানানো হয়। মন্ত্রী উপসর্গ নিয়ে নিজ সরকারি বাসায় আইসোলেশনে রয়েছেন। তিনি রোগমুক্তির জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন।

উল্লেখ্য, পরিবেশমন্ত্রী ইতোপূর্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ২০২০ সালের ১২ আগস্ট হতে ২০ আগস্ট পর্যন্ত সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

এদিন সস্ত্রীক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য অফিসার ফয়সল হাসান স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, প্রতিমন্ত্রী ও তার স্ত্রী ড. সোহেলা আক্তার দুজনই মৃদু উপসর্গ নিয়ে বর্তমানে নিজ বাসায় আইসোলেশনে রয়েছেন।

এর আগে, ২০ জানুয়ারি পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিংয়ের দ্বিতীয়বার করোনা শনাক্ত হয়। মন্ত্রীর মেয়ে এবং সহধর্মিণীও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তিনি বর্তমানে বেইলী রোডস্থ মিনিস্টার্স অ্যাপার্টমেন্টের বাসায় চিকিৎসাধীন আছেন। মন্ত্রী বীর বাহাদুর ২০২০ সালের ৬ জুন প্রথমবার করোনায় আক্রান্ত হন।

২০ জানুয়ারি খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারেরও করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। তিনি বর্তমানে ঢাকায় সরকারি বাসভবনে আইসোলেশনে রয়েছেন।

গত ৪ জানুয়ারি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের করোনা শনাক্ত হয়। তিনি ছাড়াও তার দুই ছেলে করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন।

সম্প্রতি দেশে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে। এছাড়া করোনার দক্ষিণ আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্ট ‘ওমিক্রন’-এও আক্রান্ত বেশ কয়েকজন শনাক্ত হয়েছে। এজন্য আবারও বিধিনিষেধের পথে হেঁটেছে সরকার। ভাইরাসের বিস্তার ঠেকানোর জন্য সরকার ১১ দফা বিধিনিষেধ ঘোষণা করেছে। এছাড়া ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।