নড়াইলে সরকারি ঘর দেওয়ার কথা বলে কয়েক লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

সাজ্জাদ তুহিন, নড়াইল প্রতিনিধি: নড়াইলে লোহাগড়া উপজেলার লক্ষীপাশা ইউনিয়নের সাবেক নায়েব মোঃ হায়দার আলীর বিরুদ্ধে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অসহায় ভুমিহীনদের সরকারি ঘর দেওয়ার কথা বলে কয়এক লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গিয়াছে।

সরেজমিনে গিয়ে ভুক্তভোগীদের সাথে কথা বলে জানা যায়,লক্ষীপাশা ইউনিয়নে গত এক বছর আগে নায়েব হিসাবে কর্মরত ছিলেন মোঃ হায়দার আলী, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আদেশ মোতাবেক উপজেলার লক্ষীপাশা ইউনিয়নের ঝিকড়া গ্রামে খাস জমির ওপরে ২০ টা ঘরের বরাদ্দ পায়। তার মধ্যে ১৪ টা ঘর বিভিন্ন অসহায় ভুমিহীনদের দলিল করে দেওয়া হয়েছে।

এরমধ্যে বাকি ৬টা ঘর দলিল করে দেওয়া হয় নাই এই সুযোগে লক্ষিপাশা ইউনিয়নের ভূমিহীন গরব অসহায় চার ব্যাক্তির কাছথেকে ঘর পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে  প্রায় লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন সাবেক ওই নায়েব মোঃ হায়দার আলী।

এ বিসয়ে ভুক্তভোগী আমাদা গ্রামের গফফার (খাঁ)মেয়ে  ময়না বেগম,এর কাছথেকে প্রধানমন্ত্রীর ঘর পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে,নায়েব মোঃ হায়দার ২০ হাজার টাকা, একই গ্রামের কাবেদ সরদারের মেয়ে আমেনা বেগম এর কাছথেকে ১৬ হাজার ৫০০ টাকা,নোয়াপাড়া গ্রামের রাজ্জাক শেখ এর ছেলে রহিম এর কাছথেকে

২০ হাজার, এবং বাবন শেখ এর মেয়ে কহিনুর বেগমের কাছথেকে ২০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয় বাটপার সাবেক ওই নায়েব মোঃ হায়দার আলি। কিন্তু দূর্ভাগ্য হলেও সত্য  নায়েব হায়দার আলি তাদের নামে কোন ঘর বরাদ্দ দেন নাই।

ভুক্তভোগীদের নয় ছয় করে ঘুরিয়ে বেড়াচ্ছেন। ভুক্তভোগীরা সাংবাদিকদের বলেন, আমরা মাসিক সুদে করে টাকা এনে ঘর পাওয়ার জন্য নায়েব হায়দার কে দিয়েছি। এসময় তারা আরও বলেন হঠাৎ করে নায়েব হায়দার বদলী হওয়ায়, সে এখন আমাদের ধরা ছুঁয়ার বাইরে রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর অঙ্গীকার ছিলো গৃহহীনদের বিনা মূল্যে ঘর দিবেন সেখানে নায়েব হায়দার প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নামে কলংষ্কের কালিমা লেপন করেছে এবং সরকারি আদেশ অমান্য করে তিনি অসহায় ভুমিহীনদের থেকে অবৈধভাবে টাকা নিয়েছেন।

এই ঘরের বিষয় নিয়ে নায়েব মোঃ হায়দার আলী”র সাথে কথা বলতে চাইলে তিনি বলেন, আমি আপনাকে ক্যামেরায় কোনো বক্তব্য নিবো না তখন টাকা নেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন টাকা নেওয়া হয় নাই, আপনি ওখনে গিয়ে জানেন, আর আপনি নিউজ করবেন করেন। এসময়ে একজন সাংবাদিকের গোপন ক্যামেরায় নায়েব হায়দার আলী”র কথা ভিডিও ধারণ করা হয়।

এবিষয়ে লোহাগড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রোসলীনা পারভীন এর সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, আমি এরকম কোনো অভিযোগ পাই নাই, আর ঘর দিচ্ছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সেখানে টাকা নেওয়ার কোনো সুযোগ নাই, অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে।