দেশের সামগ্রিক উন্নয়নের সাথে সাথে মানুষের ক্রয় ক্ষমতা বেড়েছে

নতুন গাড়ি পরিচয় করিয়ে দিতে মোটর ফেস্ট এর বিকল্প নেই’-জসিম উদ্দিন চৌধুরী

জাহাঙ্গীর আলম চট্টগ্রাম
দেশের সামগ্রিক উন্নয়নের সাথে সাথে মানুষের ক্রয় ক্ষমতা বেড়েছে। ফলে দীর্ঘদিন যারা রিকন্ডিশন গাড়ি ব্যবহার করেছে তারা এখন নতুন গাড়ির দিকে ঝুঁকছে। ওইসব ক্রেতাদের কাছে নতুন গাড়ি পরিচয় করিয়ে দিতে মোটর ফেস্ট এর বিকল্প নেই। এ ধরণের মোটর ফেস্ট বেশি বেশি আয়োজন করা হলে ক্রেতা ও গাড়ি বিক্রেতাদের মধ্যে একটি মেলবন্ধন সৃষ্টি হয়।

২৮ অক্টোবর বৃহস্পতিবার দুপুরে নগরীর জিইসি কনভেনশন সেন্টারে আয়োজিত তিনদিন ব্যাপী ‘৪র্থ চট্টগ্রাম মোটর ফেস্ট ২০২১’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে দৈনিক পূর্বকোণ এর প্রকাশক জসিম উদ্দিন চৌধুরী এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, চট্টগ্রামে উইজার্ড শোবিজ পর পর চারবার এমন মোটর ফেস্টের আয়োজন করেছে। এজন্য তারা প্রসংসার দাবিদার। চট্টগ্রামে এমন মোটর ফেস্টের ধারাবাহিকতা ভবিষ্যতেও বজায় থাকা প্রয়োজন। এতে বিদেশীদের আগ্রহ বাড়বে এবং বাংলাদেশের গাড়ি উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো আরো আগ্রহ পাবে। নতুন নতুন গাড়িরও উৎপাদন বাড়াবে।

উইজার্ড শোবিজ আয়োজিত ৪র্থ চট্টগ্রাম মোটর ফেস্টে অন্যান্য অতিথিদের মধ্যে ছিলেন, ঢাকা ব্যাংক লিমিটেডের এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট ও আগ্রাবাদ ব্রাঞ্চের ম্যানেজার জাহেদ ইকবাল, মিচুয়াল ট্রাষ্ট ব্যাংক লিমিটেডের রিটেইল ব্যাংককিং ডিভিশনের হেড অব বিজনেস মো. তৌফিকুল আলম চৌধুরী, জিইসি কনভেনশন সেন্টারের এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর এ.আর.এম শামীম ইকবাল এবং মোটর ফেস্ট এর আয়োজক প্রতিষ্ঠানের চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার আরিফুজ্জামান রাসেল।

অনুষ্ঠানে ঢাকা ব্যাংক লিমিটেডের এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট ও আগ্রাবাদ ব্রাঞ্চের ম্যানেজার জাহেদ ইকবাল বলেন, নতুন গাড়ি কেনার ক্ষেত্রে অনেকের আগ্রহ থাকলেও এককালীন অনেকটাকা ইনভেস্ট করার চিন্তা করে শেষ পর্যন্ত গাড়ি কেনা হয় না। তবে সেটি এখন অনেক সহজ হয়েছে। সহজ শর্তে গাড়ি লোন নিয়ে অনেকেই গাড়ি ক্রয় করছে। আর এর পরিমানও দিন দিন বাড়ছে। তাই গাড়ি মেলা হলে গাড়ির নতুন ক্রেতাও সৃষ্টি হবে।

মিচুয়াল ট্রাষ্ট ব্যাংক লিমিটেডের রিটেইল ব্যাংককিং ডিভিশনের হেড অব বিজনেস মো. তৌফিকুল আলম চৌধুরী বলেন, গত দুটি বছর করোনার মহামারির মধ্যে দেশের সামগ্রিক বাণিজ্য স্থবির হয়ে পড়েছিল। সেটি এখন ধীরে ধীরে চাঙ্গা হচ্ছে। ঠিক এই মূহুর্তে চট্টগ্রামে এমন মোটর ফেস্ট সময়োপযোগি একটি উদ্যোগ হিসেবে মনে করি। এখানে অনেক ব্যাংক অংশগ্রহণ করেছে। বাংকগুলো চায় তাদের গ্রাহকদের গাড়ি ক্রয়ের ব্যাপারে সর্বোচ্চ সেবা দিতে। এ ধরণের মেলার আয়োজন হলে কাজটি অনেক সহজ হয়।

জিইসি কনভেনশন সেন্টারের এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর এ.আর.এম শামীম ইকবাল বলেন, গাড়ি মেলার ফলে নতুন গাড়ির ক্রেতা সৃষ্টি হয়। আর গাড়ি বিক্রি বাড়লে দেশী গাড়ি উৎপাদনকারীরাও আগ্রহ পায়। আমাদের দেশের গাড়ি উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো যেভাবে তাদের পরিধি বাড়িয়েছে তাতে আশা করা যায় অদূর ভবিষ্যতে বিদেশী গাড়ির সাথে তুলনা করার জায়গা তৈরি করতে পারবে।

৪র্থ বারের মত আয়োজিত মোটর ফেস্টে মিৎসুবিশি, হাভাল, হুনদাই, এমজি ও ডিএফএসকে, ফোর্ড কোম্পানির গাড়ি ছাড়াও জনপ্রিয় মোটরসাইকেল কোম্পানির বাইকও প্রদর্শনীতে রাখা হয়েছে। আগামী ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ১১টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত এই প্রদর্শনী চলবে। এছাড়া বিভিন্ন ব্রান্ডের গাড়িগুলো ক্রেতারা টেস্ট ড্রাইভ করারও সুযোগ পাচ্ছে। অনুষ্ঠানে মিডিয়া পার্টনার হিসেবে রয়েছে চ্যানেল আই ও দৈনিক পূর্বকোণ।