তালতলীর রাজনীতির মাঠে নিশানবাড়িয়ার ৪নং ওয়ার্ডে স্বপ্নের জাল বুনে আছে ইব্রাহীম বিশ্বাস!

তালতলী(বরগুনা)প্রতিনিধিঃ বরগুনার তালতলী উপজেলায়  এখন বইতে শুরু করেছে ইউনিয়নপরিষদ নির্বাচনী হাওয়া। সারা দেশের ন্যায় তালতলীর বিভিন্ন ইউনিয়নে নির্বাচনী জনসংযোগ করেছে প্রার্থীরা। এ উপজেলায়  মাঠ জরিপে নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থী পদে এগিয়ে রয়েছেন    বর্তমান ইউপি সদস্য মোঃহুমায়ুন কবির ইব্রাহীম বিশ্বাস। গ্রাম-গঞ্জের হাটে বাজারে, পাড়ায়-মহল্লায় প্রতিটি চায়ের দোকানসহ বিভিন্ন আড্ডায়,গাড়ীতে-বাড়িতে,অটোতে-আলফায়, হুন্ডায়-রিকসায় সবখানেই এখন আলোচনার কেন্দ্র বিন্দু কে হবেন উপজেলার এ গুরুত্বপূর্ন ৬ নং নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের মেম্বার।

এলাকাবাসীর দেয়া তথ্য মতে, এবারে ৭ম ধাপের  ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের পরপরই হতে যাচ্ছে

বরগুনার তালতলী  উপজেলায় ৭টি ইউনিয়নে বিশেষ ধাপে নির্বাচন।উপজেলার ৬নং নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য পদটি এখানকার স্থানীয় সাধারণ জনগণের জন্য অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ন বিষয়। তবে নিশানবাড়িয়া  ইউনিয়নে ৪নং ওয়ার্ডে  বিভিন্ন ইস্যুতে এগিয়ে রয়েছেন  বর্তমান ইউপি সদস্য  মোঃহুমায়ুন কবির ইব্রাহীম বিশ্বাস। তার ব্যক্তিগত ইমেজের কারনে সবার কাছে তিনি প্রানের ইব্রাহীম হিসেবেও পরিচিতি। তেমনি তরুনরাও তাকে আগামীর ভবিষ্যৎ যুবরত্ন হিসেবে মনে করেন। ইব্রাহীম বিশ্বাস স্থানীয় রাজনৈতিক মাঠে শুধু সাংগঠনিকভাবে একজন আদর্শ নেতাই নয়, সত্যিকার অর্থে তিনি একজন চেইঞ্জ মেকার তার ওপরই নির্ভর করে এখানকার স্থানীয় রাজনীতির অনেক বিষয়। একটি দেশের সার্বিক উন্নয়ন তখনই ঘটে যখন দেশের একেবারে অজপাড়াগায়ে সচেতন ও যোগ্য নেতৃত্ব তৈরী হয় এবং ঐ নেতৃত্বের মাধ্যমে বিভিন্ন অনুন্নত অঞ্চলের উন্নয়নে উদ্ভাবনী উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা হয়। ইব্রাহীম বিশ্বাস পুনরায় নির্বাচিত হলে স্থানীয় সরকারের মাধ্যমে সেই কাজ সঠিকভাবে করতে সক্ষম হবে বলে অত্র ওয়ার্ড বাসী মনে করে।

আসছে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। ৬নং নিশানবাড়িয়া  ইউনিয়ন পরিষদের ৪নং ওয়ার্ডের বর্তমান  ইউপি সদস্য মোঃহুমায়ুন কবির ইব্রাহীম বিশ্বাস ‘‘আমরাই সাজাবো আগামীর নিশানবাড়িয়ার ৪নং ওয়ার্ড” শ্লোাগানে ওয়ার্ড বাসীর হৃদয়ে স্বপ্নের জাল বুনে মাঠে প্রচারণায় রয়েছেন। মোঃহুমায়ুন কবির ইব্রাহীম বিশ্বাস অন্য সকল  প্রার্থীদের থেকে রয়েছে ব্যাতিক্রম।মজার বিষয় হলো,জনগণই ব্যাপক পরিসরে তার প্রচারণা চালাচ্ছে।

সাধারন মানুষ বর্তমান ইউপি সদস্যকে আগামী নির্বাচনেও বিপুলভাবে ভোটের মাধ্যমে  এখন থেকেই তাকে  ‘মেম্বার’ বলেই বিবেচনা করেন। গোটা ওয়ার্ড  বাসী তাদের সুখে-দুঃখে, বিপদে-আপদে সব সময় ছুটে যায় তার কাছে। ইব্রাহীম বিশ্বাস কখনও নিরাশ করেন না বিপদে পড়া তার প্রিয় ৪নং ওয়ার্ড  বাসীকে। ইব্রাহীম বিশ্বাস সার্বক্ষণিক দিনভর সময় কাটিয়েছেন সাধারন মানুষকে নিয়ে। তিনি মনে করেন, আমি একটি পূনাঙ্গ সফল রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান।তা নাহলে আমি একটি মাত্র নিজের ভোট নিয়ে নির্বাচনে এসেছি, জনগন আমাকে জয়ি বানাতেন না।

আমিও তাদের এ মহানুভবতার রাজনীতির বাইরে নই। আমি কোন কুট রাজনীতি বা রাজনীতিতে হিংসা-বিদ্ধেষ, হানাহানি বুঝি না। ওই প্রতিহিংসার রাজনীতি কখনও করবো না এবং করতেও চাই না।

দেশ ও মানুষের সার্থে উন্নয়নের জন্য কোন কাজই আমি ভয় পাই না। আমি বিগত দিন গুলোতে জনগনের পাশে ছিলাম, বর্তমানে আছি এবং জনগনের মাঝেই থাকতে চাই। জনগনের শ্রধা স্নেহ আর ভালোবাসা নিয়েই রাজনীতিতে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে চাই। মানুষের ভালোবাসাকে জীবনের সবচেয়ে বড় উপর্জন মনে করে বাকি জীবনটা কাটিয়ে দিতে চাই নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের মানুষের কল্যানে, আমার প্রানপ্রীয় ওয়ার্ড বাসির কল্যানে।

ইব্রাহীম বিশ্বাসকে সবসময় শ্রদ্ধা ও ভালবাসার চোখে দেখেন এলাকার মানুষ। ইব্রাহীম বিশ্বাস শুধু একজন আপোষ হীন আদর্শ নেতাই নয়, অত্র এলাকার গরীব ও মেহনতি মানুষের পরম বন্ধু। তবে আপোষহীন এ নেতা সাধারন জনগনের সাথে ‘নেতার’ মতো আচরন করেন নি কখনো। এলাকার খেটে খাওয়া মানুষের একমাত্র প্রাণের বন্ধু ইব্রাহীম বিশ্বাস অত্র এলাকার জেষ্ঠ নেতাদের হাত ধরে-ই বিশৃঙ্খল এ ৪নং ওয়ার্ডে ফিরেছেন শান্তি-শৃঙ্খলা, বিরাজ করছে শান্তির বার্তা। খুব স্বল্প সময়ের মধ্যেই দলবল নিঃর্বিশেষে সকল বয়সী মানুষের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন এই তরুন রাজনীতিবীদ ইব্রাহীম বিশ্বাস। ইব্রাহীম বিশ্বাসের মাঝেই ভবিষৎ নেতৃত্ব খুঁজে পাচ্ছেন এখানকার প্রবীণ অধিকাংশ নেতারা ও সর্বস্তরের সাধারণ মানুষ।

তরুন এ নেতার প্রশংসার পঞ্চমুখ শুধু নিজ ওয়ার্ডপর্যায়ে নয়, পার্শবর্তী ওয়ার্ডগুলোতেও। কারন তার অক্লান্ত পরিশ্রমে ৪নং ওয়ার্ড পরিনত হয়েছে আনন্দের শিরোমনিতে। ৪নং ওয়ার্ডে ইব্রাহীম বিশ্বাস সাংগঠনিক ভাবে সুষ্ঠু নেতৃত্বের মাধ্যমে সুন্দর ও শান্তি ফিরিয়ে দিয়েছে মানুষের মাঝে। এলাকায় এবং গ্রামে গ্রামে পাড়ায়-পাড়ায় তার নেতৃত্ব ছড়িয়ে পড়েছে। শুধু ৪নং ওয়ার্ড নয় ইউনিয়নের  অজপাড়া গায়ও এ ওয়ার্ডে জয়ের তালিকায় একটি নাম উচ্চারিত হচ্ছে তা হলো ইব্রাহীম বিশ্বাস।

কিন্তু অন্যান্য প্রার্থীদের পক্ষে  তেমন কোনো তৎপরতা চোখে পড়ছে না সচেতন মহলের।

তবে রাজনীতি সচেতন স্থানীয় মহলের অভিমত, নির্বাচনি আলোচনা শুরু হওয়ার পর ইব্রাহীম বিশ্বাসের পক্ষে পেশাজীবী এবং সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের কর্মীরা যেভাবে তৎপরতা চালাচ্ছেন সে তুলনায় অন্যান্যরা অনেকটা পিছিয়ে রয়েছেন। বর্তমান সময়ে এ ওয়ার্ডে জনপ্রিয় ও আলোচিত একটি নাম ইব্রাহীম বিশ্বাস।

অতিঅল্প সময়ে নিজের আন্তরিক আচার-আচরন ও ভালবাসা দিয়ে শুধু দলীয় কর্মী-সমর্থক নয় সাধারন মানুষেরও আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন তিনি। যে কেউ কোন বিষয়ে তার শরনাপন্ন হলে, আন্তরিক ভাবে তার কথা শোনেন এবং তাৎক্ষনিক ভাবে তার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা করেন। সেই হিসেবেও ইব্রাহীম বিশ্বাসের জনসমর্থনে একটি উল্লেখযোগ্য গ্রহন যোগ্যতা ও প্রভাব বিরাজ করছে।