জেব্রার মৃত্যু ঘাসে লেড ও পরিবেশ দূষনে : বিএইউ‘র বিশেষজ্ঞ কমিটির প্রতিবেদন

গাজীপুর প্রতিনিধি: গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারী পার্কের মারা যাওয়া ১১জেব্রার মৃত্যুর তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে জেব্রার মৃত্যু নিয়ে গঠিত বিশেষজ্ঞ মেডিক্যাল বোর্ড। তদন্তে বলা হয়েছে নিয়মিত খাদ্য হিসেবে পার্কে উৎপাদিত ঘাসের মধ্যে লেড এবং বায়ু দূষণের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। মারা যাওয়ার বেশ কয়েকটি কারণের মধ্যেও এটি একটি উল্লেখযোগ্য বিষয়। বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যাথলজি অনুষদের প্রফেসর ও জেব্রা মৃত্যু নিয়ে গঠিত বিশেষজ্ঞ মেডিক্যাল বোর্ডের সদস্য ডা. আবু হাদী নূর আলী খান সাংবাদিকদের এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ল্যাব পরীক্ষায় আমরা যা পেয়েছি তা হলো পার্কের ঘাসে লেড উপস্থিতি। পার্কের আশপাশের পরিবেশও ঘন শিল্পায়ন এলাকায় অর্ন্তভূক্ত। এছাড়াও ব্যাটারীচালিত অটোরিক্সা, সিএনজিচালিত অটোরিক্সার জ¦ালানী ও মবিল থেকে কালো ধোঁয়ার প্রভাব রয়েছে পার্কের ভেতরে। একইসাথে লেড এর উপস্থিতিতে বিষক্রিয়া ঘটেছে। একদিকে বায়ু দূষণ অন্যদিকে প্রচন্ড শীতের প্রকুপ। সর্বোপরি আটটি জেব্রা নিউমোনিয়ায় প্রানহানী হারিয়েছে। যেহেতু জেব্রার মধ্যে প্রভাব ফেলেছে সেহেতু অন্যান্য প্রাণীদের মধ্যেও প্রভাব পড়ছে। মারা যাওয়া ১১টির জেব্রার মধ্যে ৩টি জেব্রার নাড়ী-ভুড়ি বেরিয়ে গেছে। তবে কতটা আঘাতে এমনটি হয়েছে তা নিশ্চিত নয়। সাফারী পার্কে মারা যাওয়া ১১টি জেব্রার মধ্যে ছবিতে দেখে এ বিষয়টি শনাক্ত করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, জেব্রাগুলো ভাই-বোন, বাবা-মায়ের মধ্যে প্রজনন ঘটিয়েছে। একই পরিবারের মধ্যে প্রজনন ঘটলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকে। জেব্রাগুলো ঘোড়া প্রজাতির প্রাণী। একইপাত্রে বানর খাবার খেলেও বানর থেকে জেব্রার দেহে জীবাণু ছড়ানোর কথা নয়। মানুষের নিউমোনিয়ায় আক্রমন যেভাবে হয় সেভাবেই জেব্রার নিউমোনিয়া হতে পারে। তাছাড়া জেব্রা ম্যানেজমেন্টেও সমস্যা থাকতে পারে। সবগুলো বিষয় চিহ্নিত করে প্রাণীর সুস্থতার জন্য পার্ক কর্তৃপক্ষকে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। তবে এত বড় একটি পার্কে এতগুলো প্রাণীর জন্য একজন ভেটিরিনারী চিকিৎসক কি ভাবে মোকাবিলা করতে পারে? জীবাণুর সংক্রমণ হলে সবগুলো একসাথে একজনের পক্ষে দেখভাল করাও সম্ভব নয়। এদিকে ইতোমধ্যে ল্যাব পরীক্ষার প্রতিবেদন মন্ত্রণালয়ে জমা দেওয়া হয়েছে। আগামী ৯ ফেব্রæয়ারি সকাল ১০টায় পার্কে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রালয়ের গঠিত তদন্ত কমিটির সাথে মেডিক্যাল বোর্ডের সদস্যদের আলোচনা সভা হবে। সভায় গুরুত্বপূর্ন বিষয় গুলো নিয়ে আলোচনা করা হবে। ২ জানুয়ারি থেকে ৩ ফেব্রæয়ারি পর্যন্ত পার্কে ১১টি জেব্রা, ১টি বাঘ ও ১টি সিংহ মারা যায়। প্রাণীর মৃত্যুর ঘটনায় একটি বিশেষজ্ঞ মেডিক্যাল বোর্ড, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় কর্তৃক ১০ কার্যদিবস সময় মেয়াদে ২৬ জানুয়ারি তদন্ত কমিটি ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রণালয় পৃথক আরেকটি কমিটি করা হয়েছে।