জাজিরা উপজেলার জয়নগ ইউপি নির্বাচনে প্রার্থীর প্রচারণায় বাধাঁ ও হুমকির অভিযোগ

মোঃ ফারুক হোসেন, শরীয়তপুর জেলা প্রতিনিধি: আসন্ন ৫ জানুয়ারী-২২ তারিখে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে শরীয়তপুর জাজিরা উপজেলার জয়নগর  ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন। এ নির্বাচনে মোটরসাইকেল প্রার্থী কাজী আমিনুল ইসলাম মিন্টু কাজীর প্রচার প্রচারণায় বাঁধা ও তার কর্মি সমর্থকদের মারধোর সহ প্রাণনাশের হুমকির অভিযোগ উঠেছে চশমা প্রার্থী ইসমাইল হোসেন খানের বিরুদ্ধে।

মোটরসাইকেল প্রার্থী কাজী আমিনুল ইসলাম মিন্টু কাজী ও তার কর্মীসমর্থকরা অভিযোগ করে বলেন, চশমা প্রার্থীর লোকজনের হাতে আমাদের মারধোরের শিকার হতে হচ্ছে। ভুক্তভোগী প্রার্থী প্রতিকার চেয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন বলে জানান। তবে সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন চশমা প্রার্থী ইসমাইল হোসেন খান৷

অভিযোগকারী কাজী আমিনুল ইসলাম মিন্টু কাজী বলেন, আমার জনজোয়ার দেখে, আমার মোটরসাইকেল প্রতীকের প্রচার প্রচারণার কাজে বাঁধা দিচ্ছে এবং আমার কর্মী-সমর্থকদের প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে যাচ্ছে চশমা প্রতীকের প্রার্থী ইসমাইল হোসেন খান ও তার কর্মী-সমর্থকরা। এমন কি বহিরাগত লোক এনে এলাকায় ভীতির সৃষ্টি করছে বলে ও অভিযোগে জানানো হয়। তিনি আরো জানান, আমার গণজোয়ার দেখে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী ভীত হয়ে আমার নামে মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছে। আমি আশঙ্ক করছি পেশিশক্তি সহ বিভিন্ন শক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে, সুন্দর ও সুষ্ঠু নির্বাচন বাধাগ্রস্ত হতে পারে। এ বিষয়ে আমি খুবই শঙ্কিত। বিষয়টি উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসারের বরাবর লিখিত অভিযোগও দিয়েছি ৷ আমি মিডিয়ার মাধ্যমে নির্বাচন সুষ্ঠ করার জন্য প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করছি৷

অভিযুক্ত চশমা প্রতীকের প্রার্থী ইসমাইল হোসেন খান তার বিরুদ্ধে আনিত সকল  অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে অপবাদ ছড়ানো হচ্ছে। আমরা কাউকে প্রচারণায় বাঁধা দিচ্ছি না। বরং তারাই আমার মাইক,গাড়ি ভাঙচুর করেছে। আমার কর্মিদের ভয়ভিতি দেখাচ্ছে৷

জাজিরা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাহবুবুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে আমার কাছে কেউ অভিযোগ করেনি ৷ আমি অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নিব।