জননেত্রী শেখ হাসিনার পরীক্ষিত সৈনিক আওয়ামীলীগ খমতায় আসার পর অরুন সরকার রানা নিজের ভাগ্য গড়েননি

নিজস্ব প্রতিবেদক: বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সাংস্কৃতিক কর্মীদের সুসংগঠিত করার কারিগর, মুখোশধারী, সুবিধাবাদী, আতঁকা নেতা নয়, একজন মানবিক, মানবতাবাদী ও মানবিকতার অধিকারী সত্যিকারের রাজনৈতিক সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, দলের চরম দুঃসময়ের রাজপথের সাহসী, ত্যাগী, বার বার নির্যাতিত ও কর্মীবান্ধব নেতা, গণ মানুষের সাংস্কৃতিক কর্মীদের নেতা, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ৪৫ বছরে রাজপথের আওয়ামী লীগের ও জননেএী শেখ হাসিনার পরীক্ষিত সৈনিক অরুন সরকার রানা।

রাজনৈতিক জীবনে আওয়ামী লীগের জন্য কাজ করেছেন নিঃস্বার্থভাবে। নিজের স্বার্থের কথা কখনো ভাবেনি। নিজের পরিবার কথা ভাবেনি। ভেবেছে আওয়ামী লীগের কথা আওয়ামীলীগের জন্য কাজ করেছেন। ঝড় বৃষ্টি টিয়ার গ্যাস গুলি তার মধ্য রাজপথে ছিলেন আওয়ামী লীগের জন্য। আওয়ামীলীগ খমতায় আসার পর ধান্দাবাজ, ও যারা স্বার্থের জন্য আওয়ামী লীগ করছেন সবাই নিজেদের ভাগ্য গড়ার জন্য সচিবালয়, মন্ত্রীদের বাড়ি গিয়ে তকবির বাণিজ্য করে ফ্লাট, গাড়ির মালিক হয়েছেন। অরুন সরকার রানা এর পিছনে দৌড়ায় নি। তিনি বঙ্গবন্ধু ও জননেত্রী শেখ হাসিনা মত আদর্শ ভোগে নয় ত্যাগে বিশ্বাসী । আওয়ামী লীগ খমতায় আসার আগে অনেকের কিছু ছিলনা তাদের অনেক কিছুই হয়েছে অরুন সরকার রানা কিছুই করেনাই। ভালো জামাকাপর নাই তার ৫ এর জনক, লেখাপড়ার খরচ, মার চিকিৎসার নিজেও অসুস্থ, স্ত্রী অসুস্থ, এই খরচ বহন করতে হিমশিম খাচ্ছে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা, কিছু আর্থিক অনুদান দিয়েছিল বলে ঔষদ খরচ হচ্ছে । তারমত আদর্শবান মানুষ লাখে একজন হয়।

তবে আওয়ামী লীগ খমতায় আসার পর টাকার মালিক হয়েছেন। সরকার খমতায় না থাকলে তারাও আওয়ামী লীগে থাকবেনা। আওয়ামী লীগের দুঃসময়ের দুর্দিনে অরুণ সরকার রানা ছিল আবার যখন আওয়ামী লীগের দুঃসময় আসবে তখনো থাকবে। নির্যাতিত হবে ।