গাজীপুরে শিক্ষার্থীদের কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন টাকার বিনিময়ে প্রদান, অভিভাবকদের অভিযোগ

গাজীপুর প্রতিনিধি: গাজীপুরে শিক্ষার্থীদের কোভিড-১৯ এর ভ্যাকসিন টাকার বিনিময়ে প্রদানের অভিযোগ উঠেছে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। এধরণের অভিযোগ তোলেন স্কুলে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীদের অভিভাবকেরা। ঘটনাটি ঘটেছে জেলার কাপাসিয়া উপজেলার চরদুর্লভ খাঁন আঃ হাই সরকার উচ্চ বিদ্যালয়ে। অভিভাবক জাকির হোসেন মোড়ল ৮ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী মানজুমা আক্তার (১৩) এর পিতা। অভিভাবক বেলাল হোসেন ১০ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী নাসরিন আক্তার (১৬) এর চাচা। অভিভাবক হনুফা বেগম ১০ শ্রেণীর শিক্ষার্থী শান্তা আক্তার(১৬), ৬ষ্ঠ শ্রেণীর শিক্ষার্থী ঝুমা আক্তার (১২) ও ৬ষ্ঠ শ্রেণীর শিক্ষার্থী রিমি আক্তার (১২) এর মাতা। অভিভাবক জেসমিন আক্তার ১০ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী সর্বনা আক্তার (১৫) ও ৬ষ্ঠ শ্রেণীর শিক্ষার্থী তামান্না আক্তার (১২) এর মাতা। অভিভাবক সাবিনা আক্তার ৬ষ্ঠ শ্রেণীর শিক্ষার্থী সুমাইয়া আক্তার (১২) এর মাতা। অভিভাবক শাহিনুর বেগম ৬ষ্ঠ শ্রেণীর শিক্ষার্থী জিদনী (১২) এর মাতা। উল্লেখিত অভিভাবকগন নিজের হাতে এবং তাদের বাচ্চাদে মাধ্যমে স্বুলে টিকা বাবদ ২০০ টাকা জমা দেওয়া কথা জানান। এদিকে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে গত ১৩ জানুয়ারী ২০২১ খ্রিষ্টাব্দে সকালে ১ম ডোজ প্রদানের সময় সরেজমিনে স্কুলে গিয়ে পাওয়া যায়, ওই স্কুলের শিক্ষক বায়েজিদ নামীও তালিকা তৈরি করে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ২০০ (দুইশত) টাকা করে আদায় করছেন। এসময় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা স্ব-শরীরে টিকাদান কেন্দ্রে উপস্থিত ছিলেন। টাকা গ্রহনের বিষয়ে ওই স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক শিব্বিার আহম্মেদের কাছে জানতে চাইলে তিনি তা পাশকাটিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। মো. আব্দুস সালাম এর সামনে শিক্ষক বরকত উল্লাহ দুইশত টাকা করে আদায় করছে এমন চিত্র দেখালে তিনি আবারও বিষটি এড়িয়ে যান। এছাড়াও একজন উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার উপস্থিতিতে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে টাকা আদায়ের বিষয়ে জানতে চাইলে শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আব্দুস সালাম বলেন, টাকার বিনিময়ে টিকা দেয়ার কোন সুযোগ নেই এমন অনেকটাই দায় মুক্ত বক্তব্য দিয়ে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে বিদ্যালয় ত্যাগ করেন। পরবর্তীতে গণমাধ্যমের উপস্থিতি আর টাকা নেওয়ার বিষয়ে জানতে পারায় স্কুল থেকে সকল শিক্ষার্থীদের টাকা ফেরৎ দেওয়ার কথা নিশ্চিত করেন অভিভাবকেরা। এবিষয়ে আবারো স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক শিব্বিার আহম্মেদ জানান, যেসকল শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে টাকা গ্রহন করা হয়েছিলো সবাইকে তা ফেরৎ দিয়ে দেওয়া হয়েছে।