কোম্পানীগঞ্জ সীমান্তবর্তী ইউপি’তে বহিরাগত সন্ত্রাসীরা কেন্দ্রে সহিংসতা সৃষ্টির আবাস

আবুল কালাম আজাদ (স্বাধীন), নোয়াখালী প্রতিনিধি: দেশের ঐতিহ্যবাহি নোয়াখালী জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় আজ ৭ ফেব্রæয়ারী ২০২২ ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আওয়ামীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক ও সেতুমন্ত্রী জনাব ওবায়দুল কাদের এমপির জন্মভূমি উপজেলা ও নির্বাচনী এলাকা হওয়াতে দেশের অন্যান্য

ইউপির তুলনায় আলোচিত ও গুরুত্বপূর্ণ মনে করছে বিশ্লেশকগণ। আরও আলোচিত হওয়ার কারণ স্থানীয় দুই প্রভাবশালী আওয়ামীলীগের হ্যাভি ওয়েট নেতা বসুরহাট পৌর মেয়র জনাব আব্দুল কাদের মির্জা ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান জনাব মিজানুর রহমান বাদল এই দু’জনই নিজস্ব মত ও পথের স্বতন্ত্র প্রতিকে চেয়ারম্যান প্রার্থী দেওয়াতে দেশের অন্যান্য ইউপির তুলনায় অনেকটা উৎকণ্ঠা ও উদ্বেগের মনে করছে বিশ্লেষকগণ। বেশ কয়েকবার স্থান পরিদর্শণে যারা রাজনীতির শুরু থেকে ৮ টি ইউপিতে নিজস্ব দল ও সাধারণ মানুষের সুখ-দুঃখ এর সাথী হিসেবে পরিচিত অনেকটা তাদের জনপ্রিয়তা সবচেয়ে বেশি ও বিজয়ের সম্ভাবনা বেশি তারা হলেন: ১ নং সিরাজপুরে আ’লীগের মনোনীন যিনি রাজনীতি অংশগ্রহণের শুরু থেকে আনারস প্রতিকের জনাব নাজিম উদ্দিন মিকন; ২ নং চরপার্বতীর আনারস প্রতিকে জনাব

মাহাবুবুর রশিদ মঞ্জু; ৩ নং চরহাজারী আনারস প্রতিকে এ জেড এম মহি উদ্দিন ; ৪ নং চরকাঁকরায় আনারস মার্কায় ফকরুল ইসলাম সবুজ; ৫ নং চরফকিরায় মটর সাইকেল প্রতিকের বর্তমান চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন ; ৬ নং রামপুরায় ; ৭ নং মুছাপুরে আনারস প্রতিকে আইয়ুব আলী এবং ৮ নং চরএলাহীতে চশমা প্রতিকের মোঃ আব্দুল মালেক জনপ্রিয়তার দিক থেকে বিজয় হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানাগেছে।

স্থানীয়রা আরও বলেন, নির্বাচনের বিগত বছরে জোর পুর্বক কেন্দ্রে দখলসহ ভোটারদের কেন্দ্রে যাওয়ার পথে বাধা প্রদানসহ হাত থেকে ভ্যালট পেপার কেড়ে নিয়ে ভোট দিয়েছে অন্যজনে এমন আচারণ অত্যন্ত কষ্টের বা বেদনার। ভুক্তভোগী রেজোয়ান বলেন, এবারে কি এমন হবে ? সেটি ও নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। ৪ নং চরকাঁকরায় ২ ওয়ার্ডে মানিক বলেন, প্রশাসন যদি নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন না করে

তা হলে সহিংসতাসহ প্রাণহানি সম্ভাবনাও রয়েছে। কারণ সরকার দলিল দুইজন বড় নেতারা পরস্পর বেশ কয়েকবার মারামারি করছে। সাংবাদিকসহ সাধারণ কর্মীদের প্রাণহানিও হয়েছে। তাদের নিজস্ব পছন্দের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আছে। যে কোন সময়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হতে পারে ভোটের দিন। বিশৃঙ্খলা এড়াতে দেশের প্রভাবালী মন্ত্রী ও এমপি জনাব ওবায়দুল কাদের সাহেবের নিকট প্রশাসনকে সার্বিক নির্দেশনার অনুরোধ আছে স্থানীয় প্রার্থীদের অনেকেই। এদিকে., সীমান্তবর্তী ইউপি মুছাপুর, চরফকিরা, চরহাজারি এবং চরপার্বতীতে বহিরাগত সন্ত্রাসী অনুপ্রবেশ ও জল দস্যুদের আনাগোনা দেখা যাচ্ছে বলে তথ্য পাওয়া গেছে। চরহাজারির এক মেম্বার ৭ নং ওযার্ডে মেম্বার প্রার্থী বলেন এ ইউনিয়নে চলদস্যুদের আগমনে নির্বাচনের দিন বিশৃঙ্খলার সম্ভাবনা আছে। তিনি সহ প্রায় সব নবাগত চেয়ারম্যান প্রার্থীদের প্রশাসনের নিরপেক্ষ ভূমিকার দাবি করেন।

৭ নং মুছাপুরে আলী আকবর ও চেয়ারম্যান প্রার্থী আনারস প্রতিকের আইয়ুব আলী জানিয়েছেন : আইন প্রয়োগকারি সংস্থার পরিচলে প্রার্থীর কর্মীর সহযোগীতা অন্য প্রার্থীর বাড়িতে তল্লাশি প্রশাসন নিরপেক্ষতার আচারণ হতে পারে না । সাদা পোশাকে এরা কারা হতে পারে জেলা প্রশাসক জনাব দেওয়ান মাহবুবুর রহমানকে খতিয়ে দেখার অনুরোধ করেন মুছাপুরের নবাগত চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ এলাকার অনেকেই। প্রায় ইউনিয়নে স্থানপরিদর্শণে জানা গেছে নতুন চেয়ারম্যান পদপ্রাথীদের বিজয়ী সংখ্যা বেশি হতে পারে এবং স্থানীয়রা আতংক ও উদ্বেগের সাথে বলেন, প্রশাসনের নিরপেক্ষতার উপর নির্ভর করে নির্বাচনের দিন সহিংসতা হবে কি না ?