কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায়  ইউপি চেয়ারম্যান বিজয়ী হলেন যারা

আবুল কালাম আজাদ (স্বাধীন), নোয়াখালী প্রতিনিধি: দেশের ঐতিহ্যবাহি নোয়াখালী জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় গত ৭ ফেব্রæয়ারী ২০২২ ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। আওয়ামীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক ও সেতুমন্ত্রী জনাব ওবায়দুল কাদের এমপির জন্মভূমি উপজেলা ও নির্বাচনী এলাকা হওয়াতে দেশের অন্যান্য ইউপির তুলনায় আলোচিত ওগুরুত্বপূর্ণ মনে করছে বিশ্লেশকগণ। বহু জল্পনা-কল্পনার অবসানের মধ্যদিয়ে নির্বাচন সমাপ্ত হওয়াতে অত্র ইপজেলা এখন শান্ত। কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাচনী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা অফিসার জনাব মো আরিফুল ইসলামের স্বাক্ষরিত চিঠি প্রেরণের মধ্যদিয়ে চূুড়ান্ত ফলাফল গত ৮ ই ফেব্রæয়ারী জানাগেছে।

ইউনিয়নের নাম্বার ভিত্তিতে ক্রমান্বয়ে যারা বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন তারা হলেন: ১ নং সিরারজপুর ইউপি’তে অটোরিক্সা প্রতিকের নাজিম উদ্দিন মিকন ৬০৫২ ভোটে বিজয়ী; তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি চশমা প্রতিকে মোহাম্মদ আবুল হাশেম পেয়েছেন ৫৪৪৮ ভোট। ২ নং চরপার্বতীতে মোহাম্মদ হানিফ ৫৪২০ ভোট পেয়ে বিজয়ী; তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি টেলিফোন প্রতিকের মোজাম্মেল হোসেন কামরুল পেয়েছেন ৪২১৬ ভোট। ৩ নং চরহাজারীতে আনারস প্রতিকের এ জেড এম মহি উদ্দিন সোহাগ ৬৪৪৩ ভোটে বিজয়ী; তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি চশমা প্রতিকে মুহাম্মদ শাহ জাহান পেয়েছেন ৪৪০০ ভোট। ৪ নং চরকাঁকরায় চশমা প্রতিকের মোঃ হানিফ সবুজ ৫৩৩১ ভোট পেয়ে বিজয়ী; তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি অটোরিক্সা প্রতিকের মোঃ সফি উল্যাহ্ পেয়েছেন ৪০২৫ ভোট। ৫ নং চরফকিরাতে মোটর সাইকেল প্রতিকের আনারস প্রতিকের মোহাম্মদ জায়দল হক ৭২২১ ভোটে বিজয়ী; তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি মোঃ জামাল উদ্দিন মোটর সাইকেল প্রতিকে পেয়েছেন ৩০৮০ ভোট। ৬ নং রামপুর ইউপিতে আনারস প্রতিকের সিরাজিল সালিকিন রিমন ৫৬৯৬ ভোটে বিজয়ী; তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি ইকবাল বাহার চৌধুরী মোটর সাইকেল প্রতিকে পেয়েছে ৪৯৪৮ ভোট। ৭ নং মুছাপুরে আনারস প্রতিকের আইয়ুব আলী ৬৯২৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী; তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি মোটর সাইকেল প্রতিকে নজরুল ইসলাম পেয়েছে ৬০৪৮ ভোট। ৮ নং চরএলাহী ইউপিতে আনারস প্রতিকের আব্দুর রাজ্জাক ৬১২২ ভোটে বিজয়ী; তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি চশমা প্রতিকে মোঃ আব্দুল মালেক পেয়েছেন ৫০৬২ ভোট। এদিকে, এই নির্বাচনে চরপার্বতীর ৪ নং ওয়ার্ডে দুই জন পুলিশ সদস্যের আহত হওয়ার খবর ছাড়া বাকি ৭ টি ইউপিতে বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ছাড়া কোন হতাহত বা প্রাণহানির খবর পাওয়া যায়নি। নির্বাচন চলাকালে বেশ কয়েকবার স্থান পরিদর্শণে, যারা রাজনীতির শুরু থেকে ৮ টি ইউপিতে নিজস্ব দল ও সাধারণ মানুষের সুখ-দুঃখ এর সাথী হিসেবে পরিচিত এবং প্রচার-প্রচারণা নির্বাচনী ইশতেহার প্রত্যেক ঘরে পৌঁছে দিতে পেরে জনপ্রিয়তা সবচেয়ে অর্জণ করতে পেরেছেন, কেবল তারাই চেয়ারম্যান হিসেবে বিজয়ী হয়েছেন বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। প্রত্যেক চেয়ারম্যান বিজয়ের পরবর্তীতে স্ব-স্ব ইউপির বিভিন্ন এলাকায় মিষ্টি বিতরণসহ এলাকাবাসির প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন বরে জানাগেছে।

এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নির্বাচনের পরের দিনও বিজয়ী হওয়াতে প্রত্যেক চেয়ারম্যান ইউপির বিভিন্ন এলাকায় তাদের কর্মী ও সমর্থকদের সাথে দেখা করে বিজয়ের আনন্দ উপভোগ করছেন। সঠিক নিরপেক্ষভাবে সামাজিক বিচার আচারসহ মানুষের জন্য কাজ করার আশাবাদে নবাগত চেয়ারম্যানবৃন্দের প্রতি রইল শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।