কেরানীগঞ্জে ইউপি নির্বাচনে দিনে শান্তিপূর্ণ ভোট, রাতে সহিংসতা

এনামুল হাসান, স্টাফ রিপোর্টার: সারাদেশে তৃতীয় ধাপে এক হাজার ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। যার ৩৩টি ইউপিতে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) এবং বাকিগুলোতে ব্যালট পেপারের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ হয়েছে।
ঢাকার কেরানীগঞ্জে ইউপি নির্বাচনে ১১টি ইউনিয়নে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। যার মধ্যে ৮টি ইউনিয়নে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।বাকি তিনটি ইউনিয়নের মধ্যে দুইটি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী জয়ী হয়েছে।
উপজেলার বাস্তা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আশকর আলী ও শাক্তা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিব নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়া হযরতপুর ইউনিয়নের লংকারচর কেন্দ্রে ভোট গণনা নিয়ে মতানৈক্য দেখা দেয়ায় এ ইউনিয়নের নির্বাচনের ফলাফল স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে।
গত রোববার (২৮ নভেম্বর) সকাল ৮টা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত কেরানীগঞ্জের ১১টি ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ করা হয়। উপজেলার বাস্তা ইউনিয়নে ভোট গ্রহণ হয়েছে ইভিএম মেশিনে। বাকি ইউপিতে ব্যালট পেপারের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ হয়েছে।
কেরানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানাগেছে, কেরানীগঞ্জ উপজেলার বাস্তা ইউনিয়নে চেয়াম্যান পদে নৌকা প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বীতাকারী আশকর আলী ১১ হাজার ৩শ ৮৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ঘোড়া প্রতীকে জেড এ জিন্নাহ পেয়েছেন ৩ হাজার ৩শ ৩৮ ভোট। শাক্তা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিব ২৮ হাজার ৫শ ৩২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী মোটরসাইকেল প্রতীকে সজিব বেপারী পেয়েছেন ২ হাজার ১শ ৯৪ ভোট। এছাড়া অপর ইউনিয়ন হযরতপুরের লংকারচর কেন্দ্রে ভোট গণনা নিয়ে মতানৈক্য দেখা দেয়ায় এ ইউনিয়নের নির্বাচনের ফলাফল স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে।
এদিকে বাস্তা ইউনিয়নের নির্বাচনে অনিয়ম ও পোলিং এজেন্টদেরকে বের করে দেওয়ার অভিযোগের প্রতিবাদে ঘোড়া প্রতীকের প্রার্থী জেড এ জিন্নাহ নির্বাচন বয়কটের ঘোষণা দেন। এ ইউনিয়নের রাজাবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হলে ম্যাজিস্ট্রেট ও বিজিবি সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আনেন।
এছাড়া দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের হাসনাবাদ কামুচাঁন শাহ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে জাল ভোট দেয়ার ছবি তোলার কারণে গণমাধ্যমকর্মীদের উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। এসময় দুর্বৃত্তরা ভোট কেন্দ্র দখল করতে চাইলে পুলিশ ও বিজিবি সদস্যরা এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এবং গণমাধ্যমকর্মীদের উপর হামলার ঘটনায় জড়িত দুইজনকে আটক করে।
এদিকে শাক্তা ইউনিয়নে নির্বাচনে অনিয়ম ও পোলিং এজেন্টদের মারধোর করে কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগে মোটরসাইকেল প্রতীকে স্বতন্ত্রপ্রার্থী সজীব বেপারী গত রোববার দুপুরে নির্বাচন বয়কট করেন।
শুভাঢ্যা ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের ঝাউবাড়ি ভোটকেন্দ্রে আপেল প্রতীকের সমর্থকেরা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার চেষ্টা করে। সংবাদ পেয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসেন। এ ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডে গত রোববার সন্ধ্যায় আপেল প্রতীকের প্রার্থী মিঠু হোসেন ওরফে এ্যানী ভোটে এগিয়ে থাকার সংবাদ ছড়িয়ে পড়ে। পরে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ফুটবল প্রতীকে আবুল হোসেনের সমর্থকেরা ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে। একপর্যায়ে ফুটবল প্রতীকের সমর্থকদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বী আপেল প্রতীকের প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে আবুল হোসেনের কর্মীরা ১৫-২০টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটান। সংঘর্ষে মিঠু হোসেন ওরফে এ্যানীর কর্মী জনি হোসেন ও ধীরেন সহ পাঁচজন আহত হয়েছে বলে জানা যায়।
অপর সূত্রে জানাগেছে, কেরানীগঞ্জের হযরতপুর উচ্চ বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে সহিংসতা ও দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের শুভাঢ্যা উচ্চ বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে ককলেট বিস্ফোরণ ও সহিংসতার ঘটনায় দুই থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কেরানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আব্দুল আজিজ বলেন, উপজেলার বাস্তা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আশকর আলী ও শাক্তা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিব নির্বাচিত হয়েছেন। হযরতপুর ইউনিয়নে লংকারচর কেন্দ্রে ভোট গণনা নিয়ে মতানৈক্য দেখায় চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য নির্বাচন কমিশনে সমস্যাগুলো আবেদন আকারে পাঠানো হয়েছে। এব্যাপারে নির্বাচন কমিশন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন।
উল্লেখ্য, কেরানীগঞ্জে মোট ভোটার ৫ লক্ষ ৩২ হাজার ৫’শ ২৭ জন। মোট ভোটারের পুরুষ ২ লক্ষ ৭১ হাজার ৭’শ ৯০ জন ও নারী ভোটার ২ লক্ষ ৬০ হাজার ৭’শ ৩৭ জন। ১১টি ইউনিয়নে ২’শ ৩৮টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। যার ৮টি কেন্দ্র ছিলো অস্থায়ী।
Attachments area