কেন্দুয়ায় মিথ্যা মামলা দায়ের করে নবনির্বাচিত  ইউপি সদস্য ও সমর্থকদের হয়রানী অভিযোগ 

ফরিদ মিয়া নান্দাইল ময়মনসিংহঃ নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া উপজেলার বোয়াইলবাড়ী আমতলা ইউনিয়নের ৫ম ধাপের সদ্য সমাপ্ত ইউপি নির্বাচনে বিপুল ভোটে ৩নং ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য মোঃ হারিছ মিয়া ও তার সমর্থকদের পরাজিত মেম্বার প্রার্থী কুতুবপুর গ্রামের মোঃ শফিকুল ইসলাম কর্তৃক কেন্দুয়া থানায় ১৮জন নেতা কর্মীর নামে বাড়ি ঘরে হামলা ও বাড়ি ঘর ভাংচুরের কথিত মিথ্যা মামলা দায়ের করে হয়রানি করার অভিযোগে সোমবার (১৭ই জানুয়ারি) এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে অভিযোগ করা হয়েছে। কুতুবপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এলাকার শান্তি শৃংঙ্খলা বজায় রাখা সহ কথিত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করার দাবী জানিয়ে বক্তব্য রাখেন সমাজ সেবক আলী আহম্মেদ বুলু, মোঃ রফিকুল ইসলাম, শেখ মোস্তুফা কামাল বাবলু, মজনু মিয়া প্রমুখ। বক্তারা প্রতিহিংসামূলক মিথ্যা মামলা দায়ের করার তীব্র নিন্দা জানান। ইউপি সদস্য মোঃ হারিছ মিয়া দাবী করেন ৫ই জানুয়ারি সুষ্ঠু নির্বাচনের ফলাফল ঘোষনা করার পর পরাজিত প্রার্থী মোঃ শফিকুল ইসলাম ও তার লোকজন নিজেরাই নিজেদের গোয়ালঘর ও পরিতেক্ত একটি ঘরের দরজা জানালা (কথা সাহিত্যেক হুমায়ুন আহম্মেদের বাড়ি বলে দাবী করেন) ভেঙ্গে বিজয়ী প্রার্থী সহ ১৮জনের নামে মামলা করেন। অথচ এই গ্রামে হুমায়ুন আহম্মেদের বাড়িঘর নেই। মামলায় সকল আসামীরা বিজ্ঞ আদালত থেকে জামিনে মুক্ত হলে পুনরায় কেন্দুয়া থানায় আরও একটি অভিযোগ দায়ের করেন। বিজয়ী প্রার্থী মোঃ হারিছ মিয়া সকল ধরনের হয়রানী বন্ধ সহ মামলা প্রত্যাহার ও এলাকার শান্তি শৃংঙ্খলা বজায় রাখার জন্য প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেন।