কক্সবাজার বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতে ছুটির আনন্দে  পর্যটকের পদভারে মুখরিত 

দিদারুল আলম সিকদার, কক্সবাজার জেলা প্রতিনিধি: বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত  কক্সবাজারে আগেভাগেই দেশের নানাপ্রান্ত থেকে ছুটে আসছেন পর্যটকরা।
কক্সবাজার শহরে  আজ বৃহস্পতিবার ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস। সরকারি ছুটির দিন। পরের দুইদিন ১৭ এবং ১৮ ডিসেম্বর শুক্র ও শনিবার। সাপ্তাহিক ছুটি মিলিয়ে টানা তিন দিনের ছুটির ফাঁদে দেশ। তাই এখন সবখানেই বিরাজ করছে ছুটির আমেজ।
বিশেষ করে, বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত শহর কক্সবাজারে আগেভাগেই দেশের নানাপ্রান্ত থেকে ছুটে আসছেন পর্যটকরা। বুধবার (১৫ ডিসেম্বর) বিকেলে সৈকত জুড়ে লোকে লোকারণ্য।
সরজমিনে দেখা যায়, সৈকতের উপক‚লে আছড়ে পড়ছে একের পর এক ঢেউ। ঢেউতে উঁকি দিচ্ছে সূর্য। ধীরে ধীরে সাগর পানে ডুবে যাচ্ছে সূর্য, বাড়ছে রক্তিম আভা। এই দৃশ্য সৈকতের বালুচরে দাঁড়িয়ে প্রত্যক্ষ করছে লাখো ভ্রমনপিপাসুরা।
বিকেল নামতেই সাগরতীরে উপচে পড়া ভিড়। সবাই মেতেছেন সাগরের জলরাশিতে। সঙ্গে মুগ্ধতা ছড়াচ্ছে সূর্যাস্ত।
চট্টগ্রামের হাটহাজারি থেকে আসা নব-দম্পতি রিয়াদ ও জায়রা বলেন, টানা ছুটিতে ভিড় অনেক বাড়বে। তাই আগেভাগেই চলে আসলাম। বিকেলে সৈকতে নেমে সূর্যাস্তের দৃশ্য দেখে খুবই ভাল লাগছে দুইজনের। এমন দৃশ্য সত্যিই অসাধারণ।
লাবণী পয়েন্টে ঘুরেবেড়ানো পুরান ঢাকা বাসিন্দা ইয়াছিন খাতুন বলেন, সবসময় ব্যস্ত থাকতে সংসার ও কর্মজীবন নিয়ে। তাই টানা ছুটিতে দুই ছেলে ও স্বামীকে কক্সবাজার ছুটে আসলাম। শীত মৌসুমে কক্সবাজার সৈকতের নৈগর্সিক সৌন্দর্য খুবই ভালো লাগছে।
আরেক পর্যটক হুমায়ুন কবির বলেন, ধীরে ধীরে সূর্য ডুবে যাচ্ছে সাগরে। এই দৃশ্য আগে কোনদিন দেখিনি। প্রথম এই দৃশ্য অবলোকন করে মনটা আনন্দে ভরে গেল।
পর্যটক বাড়াতে সৈকতে বাড়ানো হয়েছে ট্যুরিস্ট পুলিশও। সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা জোরদার করার কথা জানিয়েছে তারা।
কক্সবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, আগেভাগেই পর্যটক চলে এসেছে কক্সবাজারে। তাই আমাদের অগ্রিম প্রস্তুতিও ছিল। তবে নিরাপত্তা নিয়ে কোন ছাড় নেই। সবখানেই পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার রয়েছে।
কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আবু সুফিয়ান বলেন, আগত পর্যটকদের হয়রানি করা কোনোভাবেই মেনে নেয়া হবে না। যেখানেই অভিযোগ পাওয়া যাবে সঙ্গে সঙ্গে সেখানে গিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে। আর ধারণ ক্ষমতার বাইরে পর্যটক চলে আসলে তাদের জন্য অগ্রিম জেলা প্রশাসন ব্যবস্থা নিয়েছে। আশা করি, পর্যটক নিরাপদে ও স্বাচ্ছন্দে কক্সবাজার সৈকত ও অন্যান্য পর্যটন স্পটগুলো উপভোগ করতে পারবেন।
মহান বিজয় দিবস ও সাপ্তাহিক মিলে টানা ৩ দিনের ছুটিতে কক্সবাজার ৪ লাখের বেশি পর্যটকের সমাগম হবে বলে জানিয়েছে পর্যটন ব্যবসায়ীরা।