ঐতিহাসিক এক দ্বীপ রোবেন আইল্যান্ড

  • আদনান আহমেদ, কেপটাউন, দক্ষিণ আফ্রিকা
দক্ষিণ আফ্রিকার ওয়েস্টার্ন কেপের ছোট্ট এক দ্বীপ রোবেন আইল্যান্ড। পৃথিবীর দক্ষিণ প্রান্তে আটলান্টিক মহাসাগর ও ভারত মহাসাগর যেখানে মিলিত হয়েছে, তার ঠিক পশ্চিমে দক্ষিণ আফ্রিকার কেপটাউন শহর। কেপটাউনের সমুদ্র উপকূল থেকে ১২ কিলোমিটার দূরে গভীর সমুদ্রে ছয় বর্গ কিলোমিটার আয়তনের রোবেন আইল্যান্ডের অবস্থান।
১৫০০ শতকের প্রথমার্ধেও পৃথিবীবাসীর কাছে রোবেন আইল্যান্ড ছিল অজানা। ১৪৮৮ সালে টেবিল উপসাগরে জাহাজ নোঙরের সময় দ্বীপটির অস্তিত্ব খুঁজে পান পর্তুগিজ পর্যটক বাতোলোমিও ডায়াস। প্রাথমিকভাবে সামুদ্রিক জাতের পাখি, আফ্রিকান পেঙ্গুইন, সিল ও কচ্ছপসহ বিভিন্ন প্রাণী-জীবন অধ্যুষিত অঞ্চল ছিল দক্ষিণ আটলান্টিকের রোবেন আইল্যান্ড। আফ্রিকানরা এই জায়গাকে বলে ‘রোবেনিল্যান্ড’।
রোবেন আইল্যান্ড প্রথম দিকে কৃষিকাজে ব্যবহৃত হলেও পরে এই দ্বীপ ক্রীতদাসদের জন্য নির্ধারিত হয়। ঔপনিবেশিক আমল থেকে এই দ্বীপে ব্রিটিশরা নানা অপরাধীদের বন্দী করে রাখত। সতেরো শতক থেকে প্রায় ৪০০ বছর ধরে কারাবাস, নির্বাসন ও বিচ্ছিন্নতার স্থান হিসেবে বিশেষ করে দক্ষিণ আফ্রিকার কৃষ্ণাঙ্গ বন্দিদের নির্বাসন ও বর্ণবাদবিরোধী আন্দোলনের নেতাদের নির্বাসনের জন্য ব্যবহৃত এ আইল্যান্ড নিষ্ক্রিয় কারাগার হিসেবেই পরিচিত।
১৯৬২ থেকে ১৯৯০ সাল—দীর্ঘ ২৭ বছরের ১৮ বছর এই নির্জন দ্বীপে কারাবন্দী ছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার অবিসংবাদী নেতা নেলসন ম্যান্ডেলা। তিনি ছাড়াও দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ণবাদবিরোধী ও মুক্তিসংগ্রামের অনেক নেতাকে বিভিন্ন সময় রোবেন আইল্যান্ডে অন্তরীণ করে রাখা হয়েছিল। ১৯৯৯ সালের পর থেকে দক্ষিণ আফ্রিকার সরকার রোবেন আইল্যান্ডের বন্দিশালাকে দেশের অন্যতম জাতীয় জাদুঘর হিসেবে ঘোষণা দেয়। পরে ইউনেসকো দ্বীপটিকে বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ হিসেবে স্বীকৃতি দেয়।
পৃথিবীর অসংখ্য মানুষ কেপটাউন শহরের ম্যান্ডেলা গেটওয়ে থেকে নৌযানে করে রোবেন আইল্যান্ডে আসেন। পর্যটকদের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে থাকে ম্যান্ডেলার বন্দিশালাটি। পর্যটকদের বাসে করে ঘুরিয়ে দেখানো হয় পুরো দ্বীপ। দেখানো হয় কারাগারে থাকা বিভিন্ন বন্দীর দলিল-দস্তাবেজ ও ঐতিহাসিক স্থানসমূহ।
অজানাকে জানার জন্য যারা ঘুরে বেড়ান বিশ্বের এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে। তাদের এই দ্বীপটি ভ্রমণের জন্য একটি আর্দশ জায়গা। অনেক অজানা বিষয় জানার জন্য দুয়ার খুলে যেতে পারে এই দ্বীপটি ভ্রমণের মাধ্যমে।