উল্লাপাড়ায় হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগী ও তার স্বজনদের মারপিটের অভিযোগ

উল্লাপাড়া(সিরাজগঞ্জ)প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার হাটিকুমরুল গোলচত্বর এলাকায় অবস্থিত সাখাওয়াত এইচ মেমোরিয়াল হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা এক নয় মাসের গর্ভবতী নারী ও তার স্বজনদের সিকিউরিটি গার্ড,ডাক্তার,নার্স ও কর্মরতদের মারপিটের স্বীকার হয়েছে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী নারীর ভাগ্নে রাজু আহম্মেদ বাদী হয়ে সলঙ্গা থানায় অভিযোগ করেছে।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়,২৫ জুন শনিবার সকাল ১০টার সময় বুলবুলি খাতুন নামের (৩০) নামের ৯ মাসের গর্ভবতী নারীকে চিকিৎসার জন্য হাটিকুমরুল সাখাওয়াত এইচ মেমোরিয়াল হাসপাতালে নিয়ে আসেন তার স্বামী শহিদুল ইসলাম। শহিদুল ইসলাম তাড়াশ উপজেলার ভায়াট গ্রামের আবুল কাসেমের ছেলে।

এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক রবিউল ইসলাম রোগীকে আল্ট্রা করাতে আল্ট্রা রুমে নিয়ে যান। অনেক চেষ্টার পর আল্ট্রা মেশিন অন করতে না পারায় স্বজনেরা রোগীকে অন্যত্র নিতে চাইলে রেগে  যান চিকিৎসক রবিউল ইসলাম। তার নির্দেশে উপস্থিত সিকিউরিটি গার্ড মোঃ সানাউল্লাহ সরকার রোগীর স্বজনদের বেধরক মারপিট করে। এ সময় হাসপাতালের এডমিন আলমগীর হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

ঘটনার সত্যতা স্বকিার করে সাখাওয়াত এইচ মেমোরিয়াল হাসপাতালের এডমিন বলেন-রোগীর স্বামী শহিদুল ইসলাম আমাদের নার্স খাদিজা খাতুনের গায়ে হাত দিলে আমার উপস্থিতিতে এ ঘটনা ঘটে। এটি আসলে অপৃতিকর ঘটনা। আমি গার্ডের বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

এ দিকে গার্ড সানাউল্লাহ জানান চিকিৎসক রবিউল ইসলাম আমাকে নির্দেশ দিয়েছিলেন বলেই আমি এমন ঘটনার সাথে জড়িয়ে পরেছি।

চিকিৎসা মানুষের মৌলিক অধিকার হলেও চিকিৎসক রবিউল ইসলাম ও সংশ্লিষ্টদের সম্পৃক্ততায় প্রায়ই এমন ঘটনা ঘটে থাকে উল্লেখিত হাসপাতালে। জনসার্থে ঘটনার সাথে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নিবেন সংশ্লিষ্ট প্রশাসন এমনটাই দাবী করেন সচেতন মহল।

সলঙ্গা থানার উপ-পরিদর্শক দয়াল এ তথ্য নিশ্চত করে জানান অভিযোগ পেয়েছি তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।