উচ্চ আদালতের নির্দেশ  উপেক্ষা করে দোকান নির্মাণ 

  •  কাশিয়ানী গোপালগঞ্জ প্রতিনিধিঃ
উচ্চ আদালতের নির্দেশ উপেক্ষা করে গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে চলছে দোকান নির্মাণের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। উপজেলার রাতইল ইউনিয়নের ঘোনাপাড়া বাজারে এ ঘটনা ঘটেছে।
এ ব্যাপারে ভূক্তভোগী মোশারেফ হোসেন শেখ কাশিয়ানী থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগ করেও পুলিশের কোন সহযোগিতা পায়নি বলে অভিযোগ ভূক্তভোগীর।
ভূক্তভোগী মোশারেফ হোসেন বলেন, কাশিয়ানী উপজেলার আরএস ৮৯ নং চাপ্তা খলিশাখালী মৌজার আরএস ১৩৮০/১ ও এসএ ১৪০১ নং খতিয়ানে আরএস ২১৭১ নং দাগের ২ শতাংশ জমি বিআরএস জরিপে ৩০৪৯ নং দাগ হিসেবে ভুলে আমার বিবাদী ঘোনাপাড়া গ্রামের আইয়ুব আলী ও তার স্ত্রী জাহানারা বেগমের নামে রেকর্ড হয়।
 আমি রেকর্ড সংশোধনের জন্য ২০১৫ সালে গোপালগঞ্জ দেওয়ানী আদালতে একটি মামলা দায়ের করি। ২০২০ সালে মামলাটি খারিজ করে দেয় আদালত। পরবর্তীতে ২০২১ সালে উচ্চ আদালতে একটি রিট পিটিশন দায়ের করি।
যার প্রেক্ষিতে উচ্চ আদালত বিরোধপূর্ণ জমিতে ৬ মাসের জন্য স্থিতাবস্থার নির্দেশ দেন। নির্দেশের মেয়াদ শেষ হওয়ায় বিবাদীগণ বিরোধপূর্ণ ভূমিতে নির্মাণকাজ শুরু করে।
গত ২৬ অক্টোবর পুনরায় উচ্চ আদালত স্থিতাবস্থার নির্দেশ দেন। আমি আদালতের স্থিতাবস্থার নির্দেশের কাগজ থানায় দিয়ে আসি। কিন্তু কোন ব্যবস্থা নেয়নি থানা পুলিশ।
 উল্টো প্রতিপক্ষকে নির্মাণ কাজে সহযোগিতা করেছেন। এতে বিবাদীরা উচ্চ আদালতের নির্দেশ অমান্য করে ২ সপ্তাহ ধরে নির্মাণ কাজ চালিয়ে গেছেন।
এছাড়া তিনি আরও বলেন, ‘বিবাদীপক্ষ আমাকে প্রতিনিয়ত নানা ধরণের ভয়ভীতি ও প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে। এতে আমি পরিবার-পরিজন নিয়ে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছি। এ ব্যাপারে আমি থানায় জিডি করতে গেলেও নেয়নি পুলিশ।’
অভিযোগের তদন্ত কর্মকর্তা ও রাতইল ইউনিয়নের বিট পুলিশের দায়িত্বপ্রাপ্ত কাশিয়ানী থানার এসআই সেলিম মিয়ার সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন,‘বাদী আদালতের কোন আদেশের কাগজ দেখাতে পারেননি। যার কারণে কাজ বন্ধ রাখা সত্ত্বেও পুনরায় কাজ করছেন।