ঈদগাঁওতে প্রাথমিক শিক্ষকদের অনুষ্ঠান করোনা মহামারীতে প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষার অবস্থা কাহিল

মোঃ রেজাউল করিম, ঈদগাঁও, কক্সবাজার: ঈদগাঁওতে প্রাথমিক শিক্ষকদের বিদায় ও বরণ অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেছেন, শিক্ষা হচ্ছে জাতীয় উন্নয়নের মূল চাবিকাঠি। শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়ন করতে হলে সর্বাগ্রে শিক্ষক সমাজের উন্নয়নে মনোনিবেশ করতে হবে। চলমান অতিমারী পরিস্থিতিতে প্রাথমিক শিক্ষা স্তর সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বর্তমানে সংক্রমণের যে হার তাতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আবারো যে কোনো মুহূর্তে বন্ধ হবার সম্ভাবনা রয়েছে। কক্সবাজারের নবগঠিত ঈদগাঁও উপজেলা ও চৌফলদন্ডী ইউনিয়নের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সমূহ থেকে অবসর গ্রহণকারী শিক্ষকদের বিদায় ও নবাগত শিক্ষকদের বরণ উপলক্ষে এ অনুষ্ঠানের উদ্যোগ নেয়া হয়। অনুষ্ঠানটি যৌথভাবে আয়োজন করে বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি, ঈদগাঁও শাখা এবং প্রাথমিক সহকারি শিক্ষক ঐক্য পরিষদ, ঈদগাঁও, কক্সবাজার। ঈদগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় হলরুমে আজ বৃহস্পতিবার ২০ জানুয়ারি বিকেলে আয়োজিত এ মহতি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কক্সবাজারের সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ শহিদুল আজম। সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি ঈদগাঁও শাখার প্রধান উপদেষ্টা ও ঈদগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুহাম্মদ রফিকুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন কক্সবাজার সদর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ নুরুল আমিন, সদর উপজেলার সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ বেলাল হোছাইন, সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ হানিফ মিয়া, বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা মাস্টার নুরুল আজিম, জালালাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইমরুল হাসান রাশেদ ও প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক এবং কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম প্রমুখ। শুরুতে স্বাগত বক্তব্য দেন বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি ঈদগাঁও শাখার আহ্বায়ক ও মাইজ পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জসীম উদ্দীন। বক্তব্য রাখেন প্রাথমিক সহকারি শিক্ষক ঐক্য পরিষদ ঈদগাঁও শাখার সভাপতি মোস্তফা হেলালী, সাধারণ সম্পাদক মামুনুর রশিদ, আয়োজক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, বিদায়ী ও নবীণ প্রধান ও সহকারি শিক্ষক, মান্যগণ্য ব্যক্তিবর্গ সহ অনেকে। অনুষ্ঠানে শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ নুরুল আমিন সরকার ঘোষিত বিধি-নিষেধে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, মাস্ক পরিধান নিশ্চিত করা, বোস্টার ডোজ গ্রহণ সহ  চলমান অমিক্রণ পরিস্থিতিতে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সমূহকে সুরক্ষিত রাখতে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান। তারা বর্তমানে প্রাক-প্রাথমিকের অবস্থা আরো কাহিল বলে উল্লেখ করেন।এতে শিক্ষক নেতৃবৃন্দের পক্ষ থেকে তাদের যৌক্তিক দাবি- দাওয়া উপস্থাপন করে সমিতির অফিস স্থাপনে কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা কামনা করা হয়। শিক্ষা অফিসাররা আরো বলেন, এ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিদায়ী শিক্ষকরা তাদের আবেগ-অনুভূতিও মনের কথা প্রকাশ করার সুযোগ পেয়েছেন। অন্যদিকে নবীণ শিক্ষকরা উৎসাহ পেয়ে নিজ নিজ কর্তব্যপালনে আরো মনোযোগী হবেন। এ ধরনের সংস্কৃতি চালু রাখা অত্যাবশ্যক বলে মন্তব্য করেন শিক্ষা কর্তৃপক্ষের উপস্থিত কর্ণধাররা।

ঈদগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শফিউল আলমের উপস্থাপনায় এতে সেপ্টেম্বর/০৮ থেকে ডিসেম্বর/২১ পর্যন্ত নবাগত প্রধান শিক্ষক এবং সেপ্টেম্বর/১৮ থেকে ডিসেম্বর/২১ পর্যন্ত নবাগত সহকারি শিক্ষক, অবসরপ্রাপ্তসহ অর্ধশত শিক্ষককে আনুষ্ঠানিক বিদায় ও বরণ করা হয়।

কর্মসূচিতে অবসর গ্রহণকারী শিক্ষক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ নবাগত ও কর্মরত শিক্ষকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন খলিলুর রহমান, মোঃ সিরাজুল ইসলাম, জাকির হোসাইন, নুরুল কবির, রশিদ আহমদ, হাবিবুর রহমান, বেদারুল ইসলাম,  সৈয়দ আলম, আব্দুল আজিজ, মোঃ আব্দুল হালিম, মনজুর আলম, মাহবুবুর রহমান, জাফর আলম, শামসুল আলম, শাব্বির আহমদ, আতা উল্লাহ বুখারী, মিল্টন পাল, বদিউর রহমান, মোঃ আবু তাহের, মোশাররফ হোসাইন, শাহেদা বেগম, রতন কান্তি দে, সমীর রুদ্রসহ স্থানীয় প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।