ঈদগড়ে শহিদুল্লাহ হত্যায় প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত

ঈদগাঁও প্রতিনিধি, কক্সবাজার: ঈদগড় আলোচিত শহীদুল্লাহ হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তার সহ কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণের দাবিতে এক প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

গত ১৭ এপ্রিল ঈদগড় ইউনিয়ন ৩ নম্বর ওয়ার্ডের চরপাড়া গ্রামের ইসহাক মিয়ার তৃতীয় পুত্র স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্য শহীদুল্লাহ ( ২৪) ভাড়ায় চালিত মোটরসাইকেল নিয়ে অজ্ঞাত নম্বর থেকে ভাড়া পরিবহনের জন্য কল দিলে ছুটে যায়। এরপর থেকে শহীদুল্লাহর সন্ধান পাওয়া যাচ্ছিল না।আত্মীয়-স্বজনরা পরদিনই রামু থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

অবশেষে গত ১৯ এপ্রিল অনেক খোঁজাখুঁজির পর বাইশারী ও ঈদগড় ইউনিয়ন সংলগ্ন সীমান্ত এরিয়ায় আত্মীয়-স্বজনরা প্রথমে শহিদুল্লাহর হোন্ডা শনাক্ত করে। পরে পার্শ্ববর্তী এলাকায় খোঁজখবর নিলে মৃত অবস্থায় শহীদুল্লাহর মরদেহের সন্ধান পায়। লাশ উদ্ধার পূর্বক ময়না তদন্ত শেষে স্থানীয় বাজারে জানাজা সম্পন্ন করে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। এদিকে মৃত শহীদুল্লাহর ভাই আব্দুল জব্বার বাদী হয়ে নাইক্ষ্যংছড়ি থানায় ৯ জনকে অভিযুক্ত করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে অভিযুক্ত দুই জন আসামি রোজিনা আক্তার ও কন্ঠ শিল্পী আনোয়ার হোসেন কে আটক করা হয়েছে। অপরাপর আসামিরা পলাতক রয়েছে।

এদিকে  শহীদুল্লাহর পরিবারবর্গ ও সর্বশ্রেণী পেশার মানুষ ১৯ মে স্থানীয় ঈদগড় বাজারে  এক প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করেন। উক্ত প্রতিবাদ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বিশিষ্ট বীর মুক্তিযোদ্ধা, কক্সবাজার কলেজের সাবেক ভিপি, পল্লী চিকিৎসক, সিরাজুল হক রেজা। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ভুক্তভোগী শহীদুল্লাহর পিতা মোঃ ইসহাক মিয়া, গণমাধ্যমকর্মী জাফর আলম জুয়েল, কামাল শিশির, মটরসাইকেল সমিতির সভাপতি হামিদুল হক, ঈদের বাজার বণিক সমিতির সাবেক সভাপতি নুরুল হুদা, শ্রমিক নেতা আব্দুস সালাম, মোহাম্মদ আহসান, নুরুল আমিন, মোঃ শাহজাহান, ওমর ফারুক, ইব্রাহিম খলিল প্রমুখ।বক্তাগণ অবিলম্বে শহীদুল্লাহর হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান। অন্যথায় জনগণকে সাথে নিয়ে আরো কঠোর থেকে কঠোর কর্মসূচি দেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

এদিকে মামলার অগ্রগতির বিষয়ে তদন্তকারী কর্মকর্তার সাথে এ প্রতিবেদকের মুঠোফোনে কথা হলে মামলার দ্রুত অগ্রগতির চেষ্টা এবং তদবির চালিয়ে যাচ্ছেন। পাশাপাশি আসামী যতই শক্তিধর ও যেখানে অবস্থান করুক না কেন সংবাদ পেলেই ছুটে গিয়ে গ্রেপ্তারপূর্বক আইনের আওতায় আনা হবে বলে জানান।সম্পূর্ণ অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের এডমিন মোহাম্মদ ইউসুফ।