আখাউড়ায় ভারত থেকে আমদানীকৃত গমে পঁচা গন্ধ

মো. আল মামুন, জেলা প্রতিনিধি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে আমদানীকৃত গম থেকে পঁচা দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। মে মাসের মাঝামাঝি সময় প্রায় ২০০ টন গম ভারত থেকে এনে আখাউড়া স্থলবন্দরের গুদামে রাখা হয়। এখন এসব গম থেকে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। তবে পচা  গমগুলো আলাদা করে ভালো গম বস্তায় ভরে বন্দর থেকে নেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করেছেন আমদানীকারক প্রতিষ্ঠান এস. আলম।

ভারত থেকে পঁচা গম এসেছেন কি-না- এমন কথা নাকচ করে দিয়েছেন আমদানি সংশ্লিষ্টরা। তাঁরা বলছেন, বাংলাদেশের আসার পর ভিজে এসব গম পঁচে গেছে। তবে বন্দর সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ভারত থেকেই পঁচা অবস্থায় গম আসে। এখানে এসে নষ্ট হয়নি।

বুধবার (৮ জুন) সকালে বন্দরে গিয়ে দেখা যায়, গুদামে অনেকগুলো পচা দূর্গন্ধ যুক্ত গম আলাদা করে রাখা হয়েছে।  গমে কালো দাগ পড়ে গেছে। কিছু কিছু গমে সাদা আবরণ পড়েছে। গন্ধে গুদামে দাঁড়ানো যায় না।

গমের আমদানিকারনক এস আলম গ্রুপের প্রতিনিধি মো. জিহাদ বুধবার সকালে বলেন, আখাউড়া স্থলবন্দরে আমদানি করা দু’শ মেট্রিক টনের উপর গম রয়েছে, যা মে মাসের ১৫/১৬ তারিখে বাংলাদেশে প্রবেশ করে। মনে হয় বৃষ্টির পানি পড়ে গম নষ্ট হয়ে গেছে। ২০ টনের মত গম নষ্ট হয়েছে বলে দাবী করেন তিনি। নষ্টগুলো ফিড কোম্পানীর কাছে বিক্রি করা হবে। বাছাই করে ভালো গম আলাদা করে বস্তায় ভরে কোম্পানীতে নেওয়া হবে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ভারতের ত্রিপুরার রাজ্যের আগরতলার সঙ্গে আসামের রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ হয়ে যাওয়ার নির্ধারিত সময়ে গম আনা যাচ্ছে না। ভারতেও বৃষ্টিতে ভিজে গম নষ্ট হয়ে থাকতে পারে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন, হয়তো ভালো গমের সাথে কিছু খারাপ গম এসেছে। স্থলবন্দরের পরিদর্শক (ট্রাফিক) মো. জাকির হোসেন বলেন, আখাউড়া স্থলবন্দরে আসার পর গম বৃষ্টিতে ভিজেনি। আনার আগেই হয়তো বৃষ্টিতে ভিজেছে।